অবৈধভাবে বালু উত্তোলন চকরিয়ায় বনবিভাগের অভিযানে ৬টি ড্রেজার মেশিনসহ পাইপ ধ্বংস

অবৈধভাবে বালু উত্তোলন চকরিয়ায় বনবিভাগের অভিযানে ৬টি ড্রেজার মেশিনসহ পাইপ ধ্বংস
ছবি: সংগৃহীত

শাহজাহান চৌধুরী শাহীন, স্টাফ রিপোর্টার, কক্সবাজার।। কক্সবাজারের উত্তর বনবিভাগের ফুলছড়ি রেঞ্জের মেধাকচ্ছপিয়া বিটের পাগলিরবিল এলাকায় বনাঞ্চলের ভিতর ড্রেজার মেশিন বসিয়ে বালু উত্তোলনের বিরুদ্ধে দিনব্যাপী অভিযান পরিচালনা করেছে বনবিভাগ। এ সময় ৬টি ড্রেজার মেশিন ও সরবরাহের কাজে ব্যবহৃত  ৭'শ ফুট পাইপ জব্দের পর ধ্বংস করা হয়েছে। মঙ্গলবার ৫ জুলাই সকাল থেকে রাত পর্যন্ত ওই এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন সহকারী বন সংরক্ষক সহকারী বন সংরক্ষক ড. প্রান্তোষ চন্দ্র রায়।

বনবিভাগ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ফুলছড়ি রেঞ্জের চকরিয়া খুটাখালী মেধাকচ্ছপিয়া বনবিটের
পাগলিরবিল এলাকায় কিছু অসাধু ব্যক্তি ড্রেজার মেশিন স্থাপন করে দীর্ঘদিন যাবৎ বালু উত্তোলন করে বিক্রি করে আসছিল। এসব অসাধু ব্যক্তিদের বিভিন্ন সময় ড্রেজার মেশিন ও পাইপ জব্দ এবং ধ্বংস করে বনবিভাগ; কিন্তু আইনের তোয়াক্কা না করেই ওইসব অসাধু ব্যক্তিরা আবারও নতুন মেশিন কিনে  বালু উত্তোলন করে তা পাচার করে আসছে। 
সহকারী বন সংরক্ষক ড. প্রান্তোষ চন্দ্র রায় বলেন, কক্সবাজার উত্তর বনবিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো. আনোয়ার হোসেন সরকারের দিক-নির্দেশনায়  ফুলছড়ি রেঞ্জ কর্মকর্তা ফারুক আহমদ বাবুলের সহযোগিতায় মঙ্গলবার দিনব্যাপী অভিযান চালিয়ে বালু উত্তোলনে ব্যবহ্নত ৬ টি ড্রেজার মেশিন,৭শ’ মিটার পাইপসহ বিভিন্ন সরঞ্জামাদি জব্দ করা হয় এবং তা ধ্বংসও করা হয়। অভিযানে ফুলছড়ি ও ফাঁসিয়াখালী বিট কর্মকর্তা, স্টাফ, হেডম্যান সিপিজি সদস্য এবং ভিলেজাররা সহযোগিতা করেন।
কক্সবাজার উত্তর বনবিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো. আনোয়ার হোসেন সরকার বলেন, অভিযান টের পেয়ে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যাওয়ায় কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি। আটককৃত ড্রেজার মেশিন ও পাইপগুলো ধ্বংস করা হয়েছে। 
ডিএফও মো. মো. আনোয়ার হোসেন সরকার আরও বলেন, মঙ্গলবার ৫ জুলাই রাত ৯ টায় অবৈধভাবে বালু পরিবহন কালে একটি ট্রাক আটক করেছে বনবিভাগের বিশেষ টহলদল। এব্যাপারে আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। 
বন, বনভুমি ও পাহাড় রক্ষায় বনবিভাগের নিয়মিত অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।