আজ সৈদালী গণহত্যা দিবস: রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির দাবী

আজ সৈদালী গণহত্যা দিবস: রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির দাবী

মোহাম্মদ হাসানঃ চট্টগ্রামের মীরসরাই উপজেলার মায়ানী ইউনিয়নে সৈদালী গণহত্যা দিবস আজ। ১৯৭১ সালের ২০ এপ্রিল সৈদালী গ্রামে পাকিস্তানি হানাদাররা হত্যাযজ্ঞ চালায়। এতে প্রাণ হারান ওই গ্রামের ২২ জন সাধারণ মানুষ।

স্বাধীনতার ৫০ বছর পার হলেও এখনও চিহ্নিত করা হয়নি এসব গণকবর। স্থাপন করা হয়নি স্মৃতিস্তম্ভ। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বড়তাকিয়া বাজার সংলগ্ন পশ্চিম পাশের একটি গ্রাম সৈদালী। স্থানীয় মায়ানী ইউনিয়নের এক নম্বর ওয়ার্ডের পূর্ব, পশ্চিম, উত্তর, দক্ষিণ চার ভাগে বিভক্ত সৈদালী গ্রামে বর্তমানে ছয় হাজার মানুষের বসবাস। গ্রামের অধিকাংশ মানুষ হতদরিদ্র। মুক্তিযুদ্ধকালীন গ্রামের জনসংখ্যা ছিল পাঁচ শতাধিক। তার মধ্যে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী নির্বিচারে হত্যা করে এক মুক্তিযোদ্ধাসহ ২৩ জনকে। আবার ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী সংগ্রামে অংশ নেন গ্রামের ২৪ কিশোর-যুবক। যাদের মধ্যে বর্তমানে ১৭ জন বেঁচে আছেন।

২০১৭ সাল থেকে সৈদালী নাগরিক ফোরাম নামে একটি সংগঠন ২০ এপ্রিল দিনটিকে সৈদালী গণহত্যা দিবস হিসেবে পালন করে আসছে। সংগঠনটির নেতাদের দাবি অচিরেই সৈদালী গণহত্যা দিবসকে রাষ্ট্রীয়ভাবে স্বীকৃতি দেওয়া হোক। সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক নাট্যনির্দেশক মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ বলেন, ‘সৈদালী গণহত্যা দিবস এখনও রাষ্ট্রের খাতায় নেই। এটিকে রাষ্ট্রীয়ভাবে স্বীকৃতি দিতে হবে। এখানে গণকবর চিহ্নিত করে স্মৃতিস্তম্ভ তৈরি করতে হবে। না হয় আগামী প্রজন্ম এটি ভুলে যাবে।’