আদালতের রায় হতে অনেক দেরি, তাই দখলে যাচ্ছি!

আদালতের রায় হতে অনেক দেরি, তাই দখলে যাচ্ছি!
ছবি: সংগৃহীত

জীবন হক, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি।। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে দিন দিন বেড়েই চলেছে ভূমি দস্যুতা। ক্ষমতার দাপটে অপেক্ষাকৃত দুর্বলদের জমি ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগ নিত্যদিনের গল্প। এ নিয়ে আদালতে মামলা হলেও তোয়াক্কা নেই দাপুটেদের। 

শনিবার(৭ মে) এমনি ঘটনা দেখা গেলো ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার শিবগঞ্জ এলাকায়। আদালতে চলমান মামলার তোয়াক্কা না করে দখলের চেষ্টায় নামে বিবাদী পক্ষ। এ নিয়ে দুই পক্ষের তুমুল সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। 

আদালতে চলমান মামলার তোয়াক্কা না করে দখলে যাবার কারন জানতে চাইলে বিবাদী পক্ষের মমতাজ বেওয়া বলেন, আদালতের রায় হতে অনেক দেড়ি, তাই দখলে যাচ্ছি। প্রায় দুই যুগে মামলার কোনো সমাধান আসেনি। আর অপেক্ষা করতে পারবোনা।

জানা গেছে, শিবগঞ্জ এলাকার কেন্দ্রীয় মসজিদের পাশের ৪৫ শতক জমির দাবিদার দীর্ঘ সময় থেকে দখলে থাকা ফয়জার উদ্দিনের উত্তরসূরি নজরুল ইসলাম। একই জমির মালিকানা দাবি করে বেশ কয়বার দখলের চেষ্টা করছিলো আ.সাত্তার নামে জনৈক ব্যক্তি। এ নিয়ে নজরুল ইসলাম বাদি হয়ে ২০০০ সালে আ.সাত্তারের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করে। যা এখন হাইকোর্টে চলমান। আ. সাত্তারের মৃত্যুর পর মামলার হাল ধরনে সাত্তারের স্ত্রী মমতাজ বেওয়া। তবে তিনি আর মামলার রায়ের অপেক্ষায় থাকতে রাজি নন। তাই দখলে যাবার চেষ্টা করছে।

মামলার বাদী নজরুল ইসলাম বলেন, জমি নিজের দখলে থাকার পরও আদালতের দারস্থ হয়েছি। আদালত যে রায় দিবে সেটাই মেনে নিবো। তবে বার বার তারা জমিটি দখলের চেষ্টা করছে। আজ জমির গাছ কাটছে। পুলিশ এসে একাধিকবার সাবধান করে দিলেও কোনো লাভ হয়নি।

এ বিষয়ে ঠাকুরগাঁও সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) তানভীরুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি আমি শুনেছি। যতটুকু জানি ওই জমিতে আদালতের ১৪৪ ধারা জারি করা আছে। তাই এর আগে উভয় পক্ষকে জমিতে যেতে বাড়ন করেছি। আজ ৯৯৯ এ আমার জমিতে ঝামেলা হবার খবর পেয়েছি। সমাধানে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।