উচ্চ আদালতের পোশাক নিয়ে পর্যবেক্ষণ ও বক্তব্যকে স্যালুট জানিয়েছে জবি শিক্ষার্থীরা

উচ্চ আদালতের পোশাক নিয়ে পর্যবেক্ষণ ও বক্তব্যকে স্যালুট জানিয়েছে জবি শিক্ষার্থীরা
ছবি: তানভীর আহমেদ

তানভীর আহমেদ, জবি প্রতিনিধি।।দেশীয় মূল্যবোধ বিরোধী পোশাকের বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ায় বাংলাদেশের উচ্চ আদালতকে স্যালুট জানিয়ে মানববন্ধন করেছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) একদল শিক্ষার্থী। নরসিংদী রেলস্টেশনে পোশাকের কারণে তরুণীকে হেনস্তা প্রসঙ্গে উচ্চ আদালতের বক্তব্যকে অভিবাদন জানিয়ে এই সেলুট জানান তারা।

আজ রবিবার (২৮ আগস্ট) দুপুরে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনারের সামনে 'জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীবৃন্দ’ ব্যানারে মানববন্ধন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধন থেকে বাংলাদেশের উচ্চ আদালতকে অভিবাদন ও স্যালুট জানানো হয়। একই সঙ্গে পোশাকের নামে পশ্চিমা অপসংস্কৃতি আমদানিকারকদের আইনের আওতায় এনে বিচার দাবি করেন তারা।

মানববন্ধনে  হিসাববিজ্ঞান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের শিক্ষার্থী মোহাম্মদ মাহদী হাসান বলেন,উচ্চ আদালতের পশ্চিমা সংস্কৃতি নিয়ে পর্যবেক্ষণ ও বক্তব্যকে স্যালুট জানাই।

তিনি আরও বলেন‘প্রাইভেট প্লেস আর পাবলিক প্লেসের পোশাক কখনো এক না।পাবলিক প্লেসে কেউ অশালীন পোশাক পড়লে তা অনেকের জন্য বিরক্তি বা নুইসেন্স এর কারণ হতে পারে। আর পাবলিক নুইসেন্স অবশ্যই এক ধরনের ক্রাইম।

মানববন্ধনে মার্কেটিং বিভাগের শিক্ষার্থী আবু মোরসালিন বলেন, ‘পৃথিবীতে সর্বোচ্চ ধর্ষন প্রবল রাষ্ট্রগুলোতে অনেক নারীকেই তুলনামূলক ছোট পোশাক পরতে দেখা যায়। ছোট পোশাক পরার সাথে ধর্ষনের সম্পর্ক আছে কিনা তা অবশ্যই গবেষণার করে দেখতে হবে।

মানববন্ধনে ফিন্যান্স বিভাগের শিক্ষার্থী শুভ খান বলেন, পশ্চিমা রাষ্ট্র থেকে যদি কিছু আনতে হয় তবে জ্ঞান-বিজ্ঞান আনা উচিত, অপসংস্কৃতি নয়।

তিনি আরো বলেন,উচ্চ আদালতের বিরুদ্ধে যারা ফেসবুকে কটুক্তি করেছে তাদের বিচারের আওতায় আনার জোর দাবি জানাচ্ছি।

এদিকে এর আগে উচ্চ আদালতের মন্তব্যকে অভিবাদন জানিয়ে মানববন্ধন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। এই নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তুমুল সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে। সমালোচনাকারীরা বলছেন, দেশীয় মূল্যবোধ ও সংস্কৃতি হলে মানববন্ধনকারীদের পোশাকও তো দেশীয় সংস্কৃতির সাথে যায় না। কিন্তু তারা সেই দিকটা না দেখে অন্যদের বিচার করছে।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে ও মানববন্ধনকারীরা শার্ট-প্যান্ট পরে উপস্থিত ছিলেন।
এই  বিষয়ে জানতে চাইলে মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারী মাহদী হাসান বলেন, আমরা আসলে মূল্যবোধের কথা বলছি। আমাদের সংস্কৃতিতে কিছু মূল্যবোধ রয়েছে যেগুলো অবশ্যই আমাদের মেনে চলতে হবে। ছোট পোশাক পরিধান করা আমাদের সংস্কৃতির মূল্যবোধের পরিপন্থী কাজ যা কোনভাবেই  গ্রহণযোগ্য নয়।

উল্লেখ্য, ঢাকার একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী গত ১৮ মে নরসিংদী রেলস্টেশনে পোশাকের কারণে গালাগাল ও মারধরের শিকার হন। এ ঘটনার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার পর ব্যাপক সমালোচনা হলে নরসিংদী রেলওয়ে পুলিশ ভৈরব রেলওয়ে থানায় মামলা করে। তরুণীকে হেনস্তা ও মারধরের ঘটনায় অন্যতম অভিযুক্ত মার্জিয়া আক্তার ওরফে শিলাকে পুলিশ ৩০ মে গ্রেপ্তার করে। গত ১৬ আগস্ট শিলার জামিন আবেদনের শুনানিতে উচ্চ আদালত এ বিষয়ে কথা বলেন।