কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের বহুতল অফিস ভবন উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের বহুতল অফিস ভবন উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
ছবি: সংগৃহীত

শাহজাহান চৌধুরী শাহীন, কক্সবাজার, ১৬ মে।। আগামী ১৮ মে মঙ্গলবার কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের বহুতল অফিস ভবনের শুভ উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।  এ উপলক্ষ্যে ১৬ মে সোমবার দুপুরে কউক আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান কক্সবাজার উন্নয়ন কতৃপক্ষ চেয়ারম্যান লে. কর্ণেল (অবঃ) ফোরকান আহম্মেদ। 

তিনি বলেন, ১৮ মে সকাল ১০ টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, এমপি উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি বহুতল অফিস ভবনের শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করবেন। 
কউক চেয়ারম্যান আরও বলেন, ২০১৭ সালে 
২৭ মার্চ গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের ভূমি বরাদ্দ কমিটির সভায় কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের বহুতল অফিস ভবন নির্মাণের জন্য ১ একর ২১ শতক জমি বরাদ্দ দেয়া হয়। গত ২০১৭ সালের ৬ মে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের বহুতল অফিস ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন।

২০১৮ সালের ১৬ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত একনেক সভায় কউক এর বহুতল অফিস ভবন নির্মাণ প্রকল্পটি অনুমোদিত হয়। একই বছর ১৫ জুলাই আনুষ্ঠানিকভাবে অফিস  এবং
২০১৭ সালের অক্টোবর হতে ভবনের নির্মাণ কাজ শুরু করা হয় এবং ২০২১ সালের ডিসেম্বর প্রকল্পের কাজ শেষ হয়েছে। 
কউক চেয়ারম্যান লে. কর্ণেল ( অবঃ) ফোরকান আহম্মেদ আরও বলেন, বহুতল অফিস ভবন নির্মাণ প্রকল্পে ব্যয় বরাদ্দ দেয়া হয়েছিল

১১৪ কোটি ৮৪ লাখ ৪১ হাজার টাকা। কিন্তু কাজ শেষে টাকা সাশ্রয় হয় ৪ কোটি ৩১ লাখ টাকা। তা সরকারি ফান্ডে ফেরত দেয়া হয়েছে। গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের ঊদ্যোগে নকশা প্রনয়ন করেন স্থাপত্য অধিদপ্তর। 
কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ ও গণপূর্ত অধিদপ্তর যৌথভাবে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করেন।
কউক চেয়ারম্যান আরও বলেন, কউক ভবনে অসংখ্য সুযোগ সুবিধা রয়েছে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে, 
ভবনে মুক্ত বাতাস চলাচল নিশ্চিতকরণে ভেন্টিলেটরসহ ক্রস ভেন্টিলেশনের ব্যবস্থা।
স্যুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট (এসটিপি)। নবায়নযোগ্য জ্বালানী হিসেবে সোলার প্যানেল ও বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী বৈদ্যুতিক ফিটিংস যন্ত্রপাতি। রেইন ওয়াটার হার্ভেস্টিং।
আরবরিকালচার। সিসিটিভি। ফায়ার প্রোটেকশন সিস্টেম।
সিকিউরিটি পাইটিং। ব্যাকে। ২০০ আসন বিশিষ্ট একটি মাল্টিপারপাস হল। ১৫০ আসন বিশিষ্ট তিনটি সেমিনার হল।১৫০ আসন বিশিষ্ট দুইটি কনফারেন্স হল। বজ্রপাত প্রতিরোধ ব্যবস্থা। ভবনের ১০ তলায় রেস্টহাউজের সুবিধা।
প্রকল্পটি পরিবেশবান্ধবের মাপকাঠিতে সবুজ প্রকল্প হিসেবে গড়ে উঠেছে। এ ভবনের ৮ম তলায় জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষ ও নগর উন্নয়ন অধিদপ্তরের অফিস হিসেবে বরাদ্দ প্রদান করা হয়েছে।