কক্সবাজারে র‍্যাবের অভিযানে বিদেশী অস্ত্র, তাজাগুলি ও ইয়াবাসহ আটক-৫

কক্সবাজারে র‍্যাবের অভিযানে বিদেশী অস্ত্র, তাজাগুলি ও ইয়াবাসহ আটক-৫
ছবি: সংগৃহীত

শাহজাহান চৌধুরী শাহীন, স্টাফ রিপোর্টার, কক্সবাজার,২৬ আগষ্ট।। কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার জামতলী ক্যাম্প বাজার ও বালুখালী কাকড়া ব্রিজ এলাকায় র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-১৫) এর অভিযানে ৪ লাখ ১০ হাজার পিস ইয়াবা, আমেরিকান তৈরি পিস্তল, একে-২২ রাইফেল, এসবিবিএল বন্দুক, ম্যাগাজিন ও তাজাগুলিসহ পাঁচজনকে আটক করা হয়েছে। আটকরা হলেন- আব্দুল্লাহ রাজ্জাক ওরফে রাজ্জাক মাঝি, ইলিয়াছ, মো. সাহেদ, মো. আয়াছ ওরফে আজিজ ও সাইফুল ইসলাম। এরমধ্যে রাজ্জাক মাঝি ও আজিজুল হক রোহিঙ্গা নাগরিক। বাকি ৩ জন বাংলাদেশের নাগরিক। শনিবার (২৭ আগস্ট) দুপুরে র‍্যাব-১৫ এর সদর দপ্তরে এক সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য জানানো হয়।

র‍্যাব-১৫ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল খায়রুল ইসলাম সরকার জানান, উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মাদক ও অস্ত্রের চালান ঢোকার খবর পেয়ে র‌্যাব সেখানে অবস্থান করে।
শুক্রবার দিনগত রাত দেড়টার সময় বস্তা নিয়ে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে প্রবেশের সময় ১ লাখ পিস ইয়াবাসহ প্রথমে ইলিয়াছকে আটক করা হয়। পরে তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে তাৎক্ষণিক বালুখালী কাকড়া ব্রিজ এলাকায় অভিযান চালিয়ে আরও ৩ লাখ ১০ হাজার, তিনটি অস্ত্র ও  ১৭ রাউন্ড তাজাগুলিসহ ৪ জনকে আটক করা হয়। এসময় আরও ৪ /৫ জন পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।

র‍্যাবের অধিনায়ক আরও জানান, 
রাজ্জাক মাঝির দেহ তল্লাশী করে একটি ৭.৬৫ আমেরিকান পিস্তল, ৯ রাউন্ড তাজাগুলি ও একটি ম্যাগাজিন, শাহেদের কাছ থেকে একে-২২ রাইফেল, ৫ রাউন্ড তাজা গুলি ও ম্যাগাজিন, মো. আায়াজ প্রকাশ আজিজের কাছ থেকে এসবিবিএল বন্দুক, ৩ রাউন্ড তাজাগুলি উদ্ধার করা হয়।
তিনি আরও জানান, উখিয়া ও টেকনাফের রোহিঙ্গা ও স্থানীয় সকল ইয়াবা ও অস্ত্র সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণ করে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী নবী হোসেন গ্রুপ। মিয়ানমারে মানুষ বন্ধক রেখে ইয়াবার চালান বাংলাদেশে পাঠায় এই গ্রুপ। আটক রাজ্জাক মাঝি ইয়াবা সেক্টরের প্রধান। নবী হোসেনকেও আটকে র‍্যাব তৎপর রয়েছে বলে জানান তিনি।
 ইয়াবা ও অস্ত্র কারবার নিয়ন্ত্রণ নিয়ে সম্প্রতি বেশ আলোচনায় উঠে আসে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী নবী হোসেন। মিয়ানমার ও বাংলাদেশে তার সশস্ত্র সন্ত্রাসী গ্রুপ রয়েছে। কয়েক মাস আগে তাকে ধরিয়ে দিতে ১০ লাখ টাকা পুরস্কার ঘোষণা করেছিল বিজিবি। 
এব্যাপারে মাদক ও অস্ত্র আইনে মামলা দায়ের ও উখিয়া থানায় হস্তান্তর প্রক্রিয়াধীন বলে জানান তিনি।