কক্সবাজারে ১৯ হাজার ইয়াবাসহ আটক-৬,মিনি কার জব্দ 

কক্সবাজারে ১৯ হাজার ইয়াবাসহ আটক-৬,মিনি কার জব্দ 
ছবি: সংগৃহীত

শাহজাহান চৌধুরী শাহীন, স্টাফ রিপোর্টার, কক্সবাজার, ১৫ আগষ্ট।। কক্সবাজার-টেকনাফ সড়কে মিনি কার সার্ভিসের নামে মাদক ব্যবসা চলে আসছে দীর্ঘদিন ধরে। ১৯ হাজার পিস ইয়াবাসহ ৬ জন মাদক কারবারীকে আটক করেছে কক্সবাজার জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। এসময় ইয়াবা পাচারে ব্যবহৃত কার সার্ভিসটিও জব্দ করা হয়েছে। 

কক্সবাজার কলাতলি ডলফিন মোড়ে প্রতিযোগীতামুলক ভাবে চলে আসা ভাড়ায় চালিত কার সার্ভিসের তিনটি লাইন। এসব লাইন পরিচালনাকারীদের টার্গেট ছিল মাদক পাচার। এমন অভিযোগ দীর্ঘদিন ধরে উঠে আসছিল। অবশেষে কক্সবাজার জেলা গোয়েন্দা শাখা পুলিশের অভিযানে ইয়াবাসহ ৬ কারবারি আটক হল। 
১৫ আগস্ট সোমবার সকাল ১০ টায় কলাতলী সংলগ্ন মেরিন ড্রাইভ সড়কে চেকপোস্ট বসিয়ে অভিযানটি চালানো হয়।
আটককৃতরা হলেন, টেকনাফের মৌলভীপাড়া গ্রামের লোকমান হাকিমের ছেলে কার চালক মোঃ রফিক, নাজিরপাড়ার জাফর আলমের ছেলে সৈয়দ নুর, উত্তর নাজিরপাড়ার আব্দু শুকুরের ছেলে সৈয়দ উল্লাহ, মৌলভীপাড়ার আলী আহমদের ছেলে সিদ্দিক, চকরিয়া পূর্ব নিজপাড়ার
মৃত শাহ আলমের ছেলে ওসমান (৩০) ও টেকনাফ নোয়াখালীপাড়ার -ছৈয়দুর রহমানের ছেলে ইব্রাহিম ।
জেলা গোয়েন্দা শাখার ওসি সাইফুল আলম জানান, সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে ভাড়ায় চালিত কার গাড়ীটি তল্লাশি চালানো হয়। প্রথমে গাড়ির চালক এবং মাদক পরিবহন চক্রের অপর সদস্যরা মাদক থাকার কথা অস্বীকার করেন। গাড়িটি স্থানীয় ওয়ার্কসপে কয়েক ঘন্টা তল্লাশি করে গাড়ির নীচে বিশেষ কায়দায় বানানো বক্সে রাখা অবস্থায় ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।আটককৃতদের বিরুদ্ধে মামলা প্রক্রিয়াধীন বলে জানান ডিবির ওসি সাইফুল আলম।
স্থানীয় একটি সুত্র জানায়, ইয়াবাসহ জব্দ করা কারগাড়িটি কলাতলী মোড় এলাকায় জেলা ছাত্রলীগের এক নেতার নিয়ন্ত্রণে চলা ট্যুরিস্ট সার্ভিস কার। লাইনটি ওই ছাত্রনেতার পক্ষে দেখভাল করেন কলাতলী এলাকার আসাদুজ্জামান সায়েম ও শহরের পশু হাসপাতাল এলাকার জহিরুল ইসলাম। ইয়াবা পাচারে এই দুই পরিচালনাকারী জড়িত বলে দাবী করেন স্থানীয়রা। কার সার্ভিস লাইনের আড়ালে দীর্ঘ দিন ধরে ইয়াবা কারবারে তারা জড়িত বলে অভিযোগ রয়েছে। আটকদের রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তাদের সম্পৃক্ততার প্রমাণ পাওয়া যাবে বলে দাবী করেন স্থানীয়রা।