কাঠালিয়ায় চাঞ্চল্যকর হাসিনা হত্যা মামলার মোড় ঘুরাতে নানা ষড়যন্ত্র

কাঠালিয়ায় চাঞ্চল্যকর হাসিনা হত্যা মামলার মোড় ঘুরাতে নানা ষড়যন্ত্র
ছবি: সংগৃহীত

আজমীর হোসেন তালুকদার, ঝালকাঠি: ঝালকাঠির কাঠালিয়ায় চাঞ্চল্যকর হাসিনা বেগম হত্যা মামলার আসামীরা তদন্ত কার্যক্রমের মোড় ঘুরাতে ও নিহতের স্বামীসহ ইউপি সদস্য পুত্রকে ফাঁসাতে নানা ষড়যন্ত্র ও ছলচাতুরীর আশ্রয় নিচ্ছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে। হত্যা মামলার প্রধান আসামী জনির মাকে সাথে নিয়ে গত ৬জুন নিহত হাসিনার বড় বোন পরিচয়ে জনৈক খাদিজা বেগমের সংবাদ সম্মেলন ও ‘খুনের সাথে বোনের স্বামী ও ইউপি সদস্য ছেলে জড়িত থাকার দাবী’ সেই ষড়যন্ত্রে অংশ বলে অভিযোগে জানাগেছে। ঝালকাঠি টেলিভিশন সাংবাদিক সমিতিতে সোমবার (১৩জুন) সকালে হত্যা মামলার বাদী ও হাসিনা বেগমের পুত্র ইউপি সদস্য রিপন জমাদ্দার এক সংবাদ সম্মেলনে উল্লেখিত অভিযোগসহ নানা তথ্য তুলে ধরেন।  

    লিখিত বক্তব্যে কাঠালিয়া উপজেলার পাটিকেলঘাটা ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ও নিহতের পুত্র রিপন জমাদ্দার বলেন, আমার মা হাসিনা বেগমের বোন পরিচয় দিয়ে জনৈক খাদিজা বেগম সাংবাদিকদের কাছে যেসব তথ্য দিয়েছে তার সবটাই বানোয়াট ও ষড়যন্ত্রমূলক। কাঠালিয়া থানায় আমার দায়েরকৃত হত্যা মামলার ১নং আসামী জনি হাওলাদারের মা লাইলি বেগমকে নিয়ে ঐ মহিলার সংবাদ সম্মেলন প্রকৃতপক্ষে আসামীদের রক্ষার অপচেষ্টা ও কূটকৌশল ছাড়া কিছুই নয়।

   লিখিত বক্তব্যে ও বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে রিপন জমাদ্দার আরো বলেন, আমাদের পরিবারের অজান্তে ও হত্যাকারীদের বাঁচাতে ষড়যন্ত্রের অংশ হিসাবে মিরুখালী ইউনিয়নের ছোটশৌলা গ্রামের হাবিবুর রহমানের স্ত্রী উক্ত খাদিজা বেগম ঝালকাঠির আদালতে একটি মিথ্যা মামলা দায়েরের চেষ্টা করলেও বিচারক অভিযোগটি আমলে না নিয়ে খারিজ করে দেন। তাই খুনীরা এখোন তদন্ত কার্যক্রমকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করে নিজেদের বাঁচাতে কথিত বোন খাদিজা বেগমকে দিয়ে মিথ্যা-বানোয়াট তথ্য উল্লেখ করে সংবাদ সম্মেলন করিয়েছেন। 

    সংবাদ সম্মেলনে দেয়া বক্তব্যের স্বপক্ষে তিনি সাংবাদিকদের কাছে মঠবাড়ী উপজেলার মিরুখালী ইউনিয়নের ছোটশৌলা গ্রামের মৃত. নানা কালু মল্লিকের ওয়াশিদ সনদ, জমিজমার বিএস রেকর্ড ও ইউপি চেয়ারম্যানের প্রত্যয়নপত্র কাগজপত্র দাখিল করেন। সেই সাথে পালাতক আসামীদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার ও কথিত খালা খাদিজা বেগমকে গ্রেপ্তার করে জিজ্ঞাসাবাদসহ দ্রুতো তদন্ত সম্পন্ন করে মা হাসিনা বেগমের খুনীদের বিচার সম্পন্নে জন্য তিনি দাবী জানান। 

     উল্লেখ্য, গত ২০২১ সালের ৮ অক্টোবর  গভীর রাতে অস্ত্রধারী একদল ডাকাত সদ্য নির্বাচিত ইউপি সদস্য রিপন জমাদ্দারের পৈত্রিক বাড়ীতে হানা দিয়ে মা হাসিনা বেগম ও বাবা জালাল জমাদ্দারকে ধাড়ালো অস্ত্র দিয়ে উপোর্যুপুরী কুপিয়ে ফেলে রেখে যায়। এ ঘটনায় হাসিনা বেগম নিহত ও জালাল জমাদ্দার গুরুত্ব আহত হলে ১০ অক্টোবর রিপন জমাদ্দার বাদী হয়ে ৪জন নামধারী ও অজ্ঞাত ৯/১০জনকে আসামী করে কাঠালিয়া থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে।