গাইবান্ধা ১৩ ইউনিয়নে ৩ টিতে আওয়ামীলীগ ১০ টিতে স্বতন্ত্র 

গাইবান্ধা ১৩ ইউনিয়নে ৩ টিতে আওয়ামীলীগ ১০ টিতে স্বতন্ত্র 
ছবিঃ সংগৃহীত

আবু তাহের।। নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত দ্বিতীয় ধাপে তফসিল ভুক্ত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে গাইবান্ধার ১৩ ইউনিয়নে শান্তিপূর্ণভাবে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্যে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হওয়ার পর হয়েছে গণনা।নির্বাচনের ফলাফলে ১৩ টি ইউনিয়নের মধ্যে মাত্র ৩ টি ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ মনোনীত নৌকা প্রার্থীরা জয়লাভ করেছেন। তবে জাতীয়পার্টিসহ অন্যান্য কোন দলের প্রতিকের প্রার্থী জয়লাভ করতে পারেনি বলে নির্বাচনী ফলাফলে নিশ্চিত করা যায়।

সদর উপজেলার নির্বাচনী ফলাফলে জানা যায়, নির্বাচনে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন, লক্ষীপুর ইউনিয়নে আবুল কালাম আজাদ  (মটর সাইকেল), মালিবাড়ী ইউনিয়নে সোয়েব মোঃ রাসেল (ঘোড়া), কামারজানী ইউনিয়নে - মতিয়ুর রহমান( আনারস),ঘাগোয়া ইউনিয়নে- আমিনুরজামান রিংকু( নৌকা), গীদারী ইউনিয়নে- হারুনুর রশীদ ইদু (নৌকা), খোলাহাটি ইউনিয়নে- মাসুম হক্কানী (ঘোড়া), বাদিয়াখালী- সাফায়েতুল হক পাভেল (আনারস), মোল্লার চর ইউনিয়নে- সাইদুজ্জামান সরকার (নৌকা) রামচন্দ্রপুর ইউনিয়নে- মোব্বাসের হোসেন (আনারস) ,সাহাপাড়া ইউনিয়নে- মশিউর রহমান মিঠুল মাষ্টার (আনারস),বল্লমঝাড় ইউনিয়নে - জুলফিকার রহমান (আনারস) কুপতলা-মো: ইমাম হাসান মিলন ( আনারস) ,বোয়ালী ইউনিয়নে- শহিদুল ইসলাম সাবু (চশমা)।  ।

১১ নভেম্বর বৃহস্পতিবার সকাল ৮টায় শুরু হয়ে ভোটগ্রহণ বিরতিহীনভাবে চলে বিকেল ৪টা পর্যন্ত।এবার সদর উপজেলার ১২টি ইউনিয়নে ব্যালট পেপার এবং একটিতে ইভিএম এর মাধ্যমে নির্বাচনে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। এরমধ্যে ১শ’ ২০টি কেন্দ্রে ব্যালট ও ৯টি কেন্দ্রে ইভিএম এর মাধ্যমে ভোট গ্রহণ করা হয়। কেন্দ্র গুলোতে আনসার ও পুলিশ সদস্য এবং ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রে র‌্যাব সদস্য মোতায়েন ছিল। এছাড়া নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটগণ ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন। নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু করতে সকল প্রস্তুতি নেয় নির্বাচন কমিশন। দিনব্যাপী ভোট কেন্দ্র গুলো পরিদর্শন করেন গাইবান্ধা জেলা প্রশাসক আব্দুল মতিন,জেলা পুলিশ সুপার মুহাম্মাদ তৌহিদুল ইসলাম,জেলা নির্বাচন অফিসার আব্দুল মোত্তালিবসহ অন্যান্যরা। গাইবান্ধা সদর উপজেলার ১৩ ইউনিয়নের নির্বাচনে মোট ৭৬ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী, সংরক্ষতি নারী সদস্য ২শ’ ৪৯ জন এবং সাধারণ সদস্য পদে ৫শ’ ৮৩ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এবারে নির্বাচনে মোট প্রার্থী ৯শ’ ৮ জন প্রতিদ্বন্দিতা। এ নির্বাচনে মোট ৩ লাখ ৪ হাজার ১শ’ ৪৬ ভোটার ছিলেন।