গোবিন্দগঞ্জে আ'লীগের পার্টি অফিস ভাংচুর; দায় কার? 

গোবিন্দগঞ্জে আ'লীগের পার্টি অফিস ভাংচুর; দায় কার? 
ছবিঃ আবু তাহের

আবু তাহের, গাইবান্ধা।। ২০ ফেব্রুয়ারি।।গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক তৌকির হাসান রচি গ্রেপ্তারের পর থেকেই উত্তাল গোবিন্দগঞ্জের রাজপথ।

আজ সকাল থেকে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে  আ'লীগ ও সহযোগী অঙ্গ সংগঠনের নেতা কর্মীরা শান্তিপূর্ণভাবে বিক্ষোভ মিছিল করেন। 

সকালের দিকে নেতা-কর্মীরা মায়ামনি চারমাথা মোড়ে অবস্থান নিয়ে ঢাকা-রংপুর মহাসড়ক অবরোধ করলে আইন শৃংখলা বাহিনীর আন্তরিকতায় নেতা-কর্মীরা শান্তিপূর্নভাবে অবরোধ তুলে নেয়। 

পরে তারা পার্টি অফিসে গিয়ে অবস্থান নিয়ে নেতা-কর্মীদের সাথে মত বিনিময় করে চলে যায়। 

এরপর উপজেলা চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে বিকেলে নামধারি সন্ত্রাসী কর্তৃক পার্টি অফিস ভাংচুর ও স্থানীয় এমপি মহোদয়ের ব্যানার অবমাননা, পোস্টার ছেড়া ও চেয়ার টেবিল ভাংচুর করার প্রতিবাদে একটি মানববন্ধন করেন। 

উপজেলা চেয়ারম্যান দাবী করেন সাবেক এমপি আবুল কালাম আজাদের লোকজন পার্টি অফিস ভাংচুর করেন। 

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা শাখার সহ-সভাপতি, বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ মোস্তাফিজুর রহমান নজমুর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক তৌকির হাসান রচি এর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় গ্রেফতারের প্রতিবাদে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও সকল সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা যখন শান্তিপূর্ণ  বিক্ষোভ প্রদর্শন করছিলেন ঠিক সেই মুহুর্তে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা শাখার সংগ্রামী সভাপতি গোবিন্দগঞ্জ গণমানুষের নেতা সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করার হীন উদ্দেশ্যে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ প্রধান-এর লেলিয়ে দেওয়া কিছু দুষ্কৃতিকারীরা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা শাখার কার্যালয় ভাঙচুর করে উদ্দেশ্যমূলকভাবে দায় চাপানোর অপচেষ্টা করছে।

 গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা আ'লীগের একাধিক নেতা বলেন, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলের জন্মলগ্ন থেকে কোন পার্টি অফিস ছিল না।

 কালের বিবর্তনে জনতার নেতা অধ্যক্ষ আবুল আজাদের (সাবেক সংসদ সদস্য ও সভাপতি উপজেলা আওয়ামী লীগ) হাত ধরে যখন গোবিন্দগঞ্জের আওয়ামিলীগ এর একটি পার্টি অফিস দাঁড়িয়ে আছে।


 ঠিক তখনই কিছু কুচক্রী মহল অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদের অবদানের প্রতি ঈর্যানীত হয়ে তার অবদানকে কলুষিত করতে পার্টি অফিসে ঢুকে ভাংচুর করে এবং এর দোষ জনতার নেতা তৃনমূল  নেতাকর্মীদের হৃদয়ের স্পন্দন অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদের উপর চাপানোর পরিকল্পনা করে যাচ্ছে। 


কিন্তু এই কুপরিকল্পনা কে আমরা ঘৃনাভরে প্রত্যাখান ও প্রতিহত করতে বদ্ধপরিকর।


তারা আরও বলেন, আমরা এই ঘৃণ্য অপকর্ম ও ষড়যন্ত্রের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং এই ষড়যন্ত্রের সাথে সকল দুষ্কৃতিকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে উদাত্ত আহ্বান জানাচ্ছি।