চাঁদাবাজি মামলার আসামি জামিনে এসে প্রকাশ্যে হাতুড়ি দিয়ে পেটালেন শিক্ষা কর্মকর্তাকে

চাঁদাবাজি মামলার আসামি জামিনে এসে প্রকাশ্যে হাতুড়ি দিয়ে পেটালেন শিক্ষা কর্মকর্তাকে
ছবি: সংগৃহীত

নোয়াখালীতে চাঁদাবাজির মামলায় হাজত খাটার পর জামিনে বেরিয়ে মামলার বাদী সদর উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুর রবকে (৪৭) প্রকাশ্যে হাতুড়িপেটা করেছে দুর্বৃত্তরা। শুক্রবার বেলা দুইটার দিকে শহরের রশিদ কলোনি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে সুধারাম থানা-পুলিশ তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করলেও কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

হামলায় শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুর রব গুরুতর আহত হয়েছেন। স্থানীয় বাসিন্দাদের সহায়তায় তাঁকে প্রথমে নোয়াখালীর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে তিনি তাঁর রশিদ কলোনির বাসায় থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

আহত শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুর রব জানান, তিনি শহরের রশিদ কলোনি এলাকায় একটি বাড়ি করেছেন। বাড়ি নির্মাণের শুরুতে স্থানীয় বাসিন্দা ফজলে এলাহী ওরফে এলমান ও সুলতান আহমদ নামের দুই ব্যক্তি চাঁদা দাবি করেন। কিন্তু চাঁদা না দেওয়ায় তাঁরা কিছু নির্মাণসামগ্রী চুরি করে নিয়ে যান। ওই ঘটনায় গত ফেব্রুয়ারিতে সুধারাম থানায় মামলা করলে পুলিশ ফজলে এলাহীকে গ্রেপ্তার করে। কয়েক দিন আগে তিনি জামিনে ছাড়া পেয়েছেন।

আবদুর রব অভিযোগ করেন, শুক্রবার দুপুরে জুমার নামাজ শেষে ছেলেকে সঙ্গে নিয়ে তিনি বাসায় ফিরছিলেন। এ সময় ফজলে এলাহীসহ কয়েকজন তাঁর পথরোধ করে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে রক্তাক্ত করেন। হামলায় গুরুতর আহত হন তিনি। তখন তাঁর ছেলের চিৎকারে মসজিদের অন্য মুসল্লিরা এগিয়ে এলে হামলাকারীরা পালিয়ে যান। উল্লিখিত হামলাকারীদের চাঁদাবাজিতে এলাকার মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে বলে জানান তিনি।

ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত ব্যক্তিরা এলাকা থেকে গা ঢাকা দিয়েছেন। এ ব্যাপারে তাঁদের বক্তব্য জানার চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি।

সুধারাম থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মিজানুর রহমান বলেন, খবর পেয়ে তিনি হাসপাতালে গিয়ে আহত শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুর রবকে দেখে এসেছেন। হামলার ঘটনায় অভিযুক্ত ব্যক্তিদের ধরতে পুলিশ একাধিক স্থানে অভিযান চালিয়েছে। কিন্তু তাঁদের আটক করা সম্ভব হয়নি। এ ঘটনায় শিক্ষা কর্মকর্তাকে থানায় আরেকটি লিখিত অভিযোগ দিতে বলা হয়েছে। অভিযোগ পেলে যথাযথ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।