চিলমারীতে আওয়ামী লীগের অফিস ভাংচুর

চিলমারীতে আওয়ামী লীগের অফিস ভাংচুর
ছবিঃ সংগৃহীত

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি।।  ৩০ মার্চ, মংগলবার।। কুড়িগ্রামের চিলমারীতে আওয়ামী লীগের অফিস ভাংচুর করেছে দুর্বৃত্তরা।

জানা যায়, রবিবার রাত ১০টার দিকে উপজেলার চিলমারী ইউনিয়নের কড়াইবরিশাল বাজারে আওয়ামী লীগের অফিসে অতর্কিত হামলা করে দুর্বৃত্তরা। 

রাতে নেতা কর্মীরা আওয়ামী লীগ অফিসে বসে মিটিং করছিলেন। এসময় আমিনুল ইসলাম কাজীর নেতৃত্বে বিএনপি জামায়াতের ২ শতাধিক কর্মী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে ইট, পাটকেল ছুঁড়ে মারে।  

হামলাকারীদের ভয়ে অফিসের ভিতরে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা আটকে পড়লে তাদের উপর ধারালো অস্ত্র দিয়ে আক্রমণ করে। কিন্তু উপায় না পেয়ে আটকে পড়া কয়েকজন পিছনের টিনের বেড়া খুলে পালিয়ে যায়।

হামলাকারীরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি অবমাননা করে। ছবিগুলো রানদা দিয়ে ২ টুকরো করে।
পরে খবর পেয়ে রাত সাড়ে ১২টার দিকে ঘটনাস্থলে যান চিলমারী মডেল থানা পুলিশ।

এদিকে সোমবার সকালে চিলমারী উপজেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে একটি প্রতিনিধি দল ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যায়। 

প্রতিনিধি দলে ছিলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মোঃ রেজাউল করিম লিচু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোঃ আবু হানিফা রঞ্জু, সাংগঠনিক সম্পাদক আশরাফুল ফরিদ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক প্রভাষক জাহাঙ্গীর আলম, যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক মোঃ নজরুল ইসলাম চাঁদ চৌধুরী, প্রচার সম্পাদক মোঃ শহিদুল ইসলাম, থানাহাট ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ আব্দুল করিম।

এবিষয়ে চিলমারী ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ গয়ছল হক মন্ডল বলেন, কিছুদিন আগেই আওয়ামী লীগ অফিসটা করা হয়েছে। নতুন টিভি, ডিস ও সোলার সংযোগ দেয়া হয়েছে।

 হামলাকারীরা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে রাজিবপুর উপজেলার সাপের চর, মহনগঞ্জ ও কোদালকাটি থেকে জামায়াত ও হেফাজতের কর্মীদের নিয়ে এসে হামলা চালায়। 

এতে করে ঘরের কোন অস্তিত্ব তারা রাখেনি। এব্যাপারে চিলমারী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে।

 আপাতত পরিস্থিতি শান্ত আছে। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তবে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি গয়ছল হক মন্ডল জানিয়েছেন মামলার প্রস্তুতি চলছে।

অভিযুক্ত আমিনুল ইসলাম কাজীর সাথে ফোনে কথা হলে তিনি জানান আমি একজন আওয়ামী লীগের কর্মী আমার সাথে কোন বিএনপি জামায়াতের লোকদের  সাথে কোন সর্ম্পক নেই এবিষয়ে কিছুই জানিনা সামনে ইউপি নির্বাচন তাই আমাকে ফাঁসানোর চক্তান্ত করছেন একটি মহল।