মাধবদীর মর্নিংসান ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজে জাতীয় শোক দিবস পালন করা হয়

মাধবদীর মর্নিংসান ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজে জাতীয় শোক দিবস পালন করা হয়
অনুষ্ঠানের ব্যানার

নিজস্ব প্রতিনিধি :  আজ ১৫ আগষ্ট, বাঙালি জাতীর জন্য এক বিভীষিকাময় অধ্যায়। এ দিনে স্ব-পরিবারে নিহত হয়েছিলেন হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি সর্বকালের মহানায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ১৯৭৫ সালে সেনাবাহিনীর কতিপয় বিপথগামি সদস্যের হাতে নিজ বাসায় নির্মম ভাবে নিহত হয়েছিলেন তিঁনি।

সারা দেশের মানুষ এ দিনটিতে বঙ্গবন্ধুর স্মরণে বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় নরসিংদী জেলার মাধবদী থানার ঐতিহ্যবাহী বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান মর্নিংসান ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষক মিলনায়তনে সকাল ১০ ঘটিকায় আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মর্নিংসান ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজের প্রতিষ্ঠাতা, হাজী আমিন উদ্দিন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ও মাধবদী থানা কিন্ডারগার্টেন এসোসিয়েশনের সভাপতি ইঞ্জিনিয়া মোঃ মফিজুল ইসলাম। 

সকল শিক্ষক কর্মচারী সহ উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ এম. মাহামুদুল হাসান । স্কুলের সিনিয়র শিক্ষক মোঃ সাইফুল্লাহ'র সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানের শুরুতে কুরআন থেকে তেলাওয়াত করেন প্রতিষ্ঠানের আইটি শিক্ষক মোঃ পারভেজ এবং গীতা থেকে পাঠ করেন সহকারী শিক্ষিকা মাম্পি রানী সাহা।

স্কুলের অধ্যক্ষ এম মাহামুদুল হাসানের সূচনা বক্তব্যের মধ্য দিয়ে আলোচনা পর্বে অংশ নেন স্কুল এন্ড কলেজে সিনিয়র শিক্ষক মোঃ ফরিদ মিয়া।

অনুষ্ঠানের সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার মোঃ মফিজুল ইসলাম তার সমাপনী বক্তব্যে বলেন, জাতির পিতাকে যারা হত্যা করেছে দুরের কেউ নয় তারা এ দেশেরই হতভাগা মানুষ। ইতিহাস বলে, তারা বঙ্গবন্ধুর খুব কাছের মানুষ ছিলেন । তবে সত্যিকারের বঙ্গবন্ধুর আদর্শে পথ চলতে পারলে দেশ কখোনো পিছিয়ে পড়তে পারে না। তিনি আরো বলেন, দেশ আজ কঠিন পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে চলেছে, বিগত দিনে জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠান অনেক বড় পরিসরে আয়োজন করতে পারলেও বর্তমান কোভিড পরিস্থিতিতে সেটা আর সম্ভব নয়। জনাব মফিজুল ইসলাম দেশের সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে স্কুল কলেজ খুলে দেয়ার জন্য সরকারের কাছে বিনীত আহবান জানান।

অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে সিনিয়র শিক্ষক নুরূল আমিনের পরিচালনায় দোয়া ও মিলাদ অনুষ্টান সম্পন্ন হয়। দোয়া অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, শেখ কামাল, শেখ জামাল, শিশু শেখ রাসেল সহ পরিবারের নিহত সকল সদস্য ও স্বজনদের জন্য দোয়া প্রার্থনা করা হয়।