জবিতে ৩৭ মণ্ডপে সরস্বতী পূজা উদযাপন

জবিতে ৩৭ মণ্ডপে সরস্বতী পূজা উদযাপন
ছবি: সংগৃহীত
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি।।দীর্ঘ দু'বছর পর উৎসবমুখর পরিবেশের মধ্যে দিয়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে (জবি) নানা আয়োজনে উদযাপিত হয়েছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বিদ্যার দেবী খ্যাত সরস্বতী পূজা। 
(বৃহস্পতিবার) সকাল থেকেই পুরো বিশ্ববিদ্যালয় আঙ্গিনা জুড়ে সনাতন ধর্মাবলম্বী শিক্ষক - শিক্ষার্থীদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে এ পূজা উদযাপন পালন করা হয়। 
পূজা উপলক্ষে সকাল থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়সহ আশপাশের বিভিন্ন স্থান থেকে সনাতন ধর্মাবলম্বী শিক্ষার্থীরা দল বেঁধে পূজা আর্চণা করে মন্ডপগুলোতে। পূজার আনুষ্ঠানিকতা শেষে শিক্ষার্থীরা নিজেদের মতো করে ক্যাম্পাসে একে অপরের সঙ্গে আনন্দ মিছিলে মেতে উঠেন। এ সময় মন্ডপের সামনে অনেক শিশুদের হাতেখড়ি দিতে দেখা যায় পুরোহিতদের।

এরআগে পূজা উপলক্ষে রাত থেকেই ক্যাম্পাসে আলপনা দেয়া থেকে শুরু করে শিক্ষার্থীরা স্ব স্ব বিভাগের পূজা মন্ডপগুলো সাজিয়ে তুলে। দীর্ঘ দু’বছর করোনার কারণে পূজা না করতে পারায় এবার পুরোনো আমেজে দেবী বন্দনায় মেতে উঠেন সনাতন ধর্মাবলম্বী শিক্ষক শিক্ষার্থীরা। 

এবার বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান, কলা,ব্যবসায় শিক্ষা,  সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ, দুই ইনস্টিটিউটসহ একমাত্র ছাত্রী হলের অংশগ্রহণে সর্বমোট ৩৭টি মন্ডপে অঞ্জলি দেওয়ার মধ্য দিয়ে পূজার মূল আনুষ্ঠানিকতা শেষ হয়।
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. পরিমল বালা বলেন, করোনার পর এবারই প্রথম উৎসাহ-উদ্দীপনা ও পুরোনো আমেজে বিশ্ববিদ্যালয়ে সরস্বতী পূজা পালন করা হচ্ছে। সুন্দর পরিবেশে পূজা উদযাপন চলছে। বিশ্ববিদ্যালয় ও প্রশাসন সর্বাত্মক সহযোগিতা করছে আমাদের। সবাই উপভোগ করছে। 

বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. কামালউদ্দীন আহমদ বলেন, সরস্বতী পূজা অসাম্প্রদায়িক উৎসব। জগন্নাথের একটি ঐতিহ্য আছে বরাবরের মতো এখানে ছাত্র - শিক্ষক সবাই একত্রিত পূজা উদযাপন করে। আজকাল মানুষ সাম্প্রদায়িক হুমকিতে আছে তবে আমি মনে করি এর উত্তর হচ্ছে আজকের এই উৎসব। 
পূজা উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. ইমদাদুল হক বলেন, জগন্নাথ হলের পর বাংলাদেশে বড় পূজা হয় আমাদের ক্যাম্পাসে। করোনা মহামারীর জন্য আমরা দীর্ঘ দু'বছর কোনো পুজার  ব্যাবস্থা করতে পারিনি। তবে এবারে পুরো উদ্যমে পূজা হচ্ছে। যেকোনো দুর্ঘটনা ও বিবাদ এড়াতে বিশ্ববিদালয় প্রশাসন প্রস্তুত। তাই সবাইকে আহ্বান করছি সুন্দর এবং সুশৃঙ্খল  ভাবে পূজা উদযাপন করতে।