জবি এবং শেকৃবি'র এর মাঝে গবেষণা সহযোগিতা সংক্রান্ত চুক্তি স্বাক্ষর।

জবি এবং শেকৃবি'র এর মাঝে গবেষণা সহযোগিতা সংক্রান্ত চুক্তি স্বাক্ষর।
ছবিঃ সংগৃহীত
তানভীর আহমেদ//জবি সংবাদদাতা// জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় এবং শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে এক সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে। সোমবার বেলা ১২টায় জগন্নাথ বিশ্বিবিদ্যালয়ের উপাচার্য সভাকক্ষে এই চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সমঝোতা স্মারকের আওতায় জীবপ্রযুক্তি, জিন প্রকৌশল, কৃষি প্রযুক্তি এবং জিনোমিকের গবেষণাসহ বিভিন্ন বিষয়ে যৌথভাবে গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনা করবে দেশের শীর্ষস্থানীয় এই দুই বিশ্ববিদ্যালয়।
অনুষ্ঠানে জবি পক্ষে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ ইমদাদুল হক এবং শেকৃবি এর পক্ষে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ শহীদুর রশীদ ভুঁইয়া এই সমঝোতা স্মারক চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।
এছাড়াও শেকৃবি এর পক্ষে রেজিস্ট্রার শেখ রেজাউল করিম এবং জবি পক্ষে রেজিস্ট্রার প্রকৌশলী মোঃ ওহিদুজ্জামান ও পরিচালক (গবেষণা) অধ্যাপক ড. পরিমল বালা স্বাক্ষী হিসেবে চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।
অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জবি ট্রেজারার অধ্যাপক ড. কামালউদ্দীন আহমদ, শেকৃবি ট্রেজারার অধ্যাপক ড. মোঃ নজরুল ইসলাম। 
সমঝোতা স্মারকের আওতায় শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় এবং জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় জীবপ্রযুক্তি, জিন প্রকৌশল, কৃষি প্রযুক্তি এবং জিনোমিকের বিভিন্ন শাখা (Plant and Environmental, Plant Pathology and Microbial, Plant Breeding and Agricultural, Cellular study of Plants, Fisheries, Wildlife and Biodiversity Conservation, Entomology, Animal, Plant and Agricultural, Soil, Water and Environmental Analysis,...) এর শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও গবেষকরা গবেষণা প্রকল্প বাস্তবায়নে; প্রযুক্তিগত ও বৈজ্ঞানিক তথ্যের আদান-প্রদানে; জার্নালের আদান প্রদানে; যৌথ উদ্যোগে বিভিন্ন বৈজ্ঞানিক ও প্রযুক্তিগত সেমিনার, সিম্পোজিয়াম ও কনফারেন্সের আয়োজন; উচ্চতর গবেষণার ক্ষেত্রে গবেষক ও শিক্ষার্থীদের যৌথ কর্মসম্পাদন; উভয় প্রতিষ্ঠানের গবেষক ও শিক্ষার্থীদের সংশ্লিষ্ট অত্যাধুনিক গবেষণাগার ব্যবহার; গবেষকদের মাঝে নিয়মিত পরিদর্শন; যৌথ প্রকাশনা ও যৌথ প্রকল্পের মাধ্যমে অর্জিত ফলাফলের Patents প্রক্রিয়াকরণ এবং যৌথ উদ্দেশ্য অর্জনে যে কোন সহযোগিতা লাভ করবেন।
জবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ ইমদাদুল হক সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের জন্য শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানান। এর মাধ্যমে উভয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, গবেষক, শিক্ষার্থী তথা গোটা জাতি উপকৃত হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।