ঝালকাঠিতে আদালতের নিষেধাজ্ঞা লংঘন করে সওজ’র জমি দখলের অভিযোগ, আটক ২

ঝালকাঠিতে আদালতের নিষেধাজ্ঞা লংঘন করে সওজ’র জমি দখলের অভিযোগ, আটক ২
ছবি: সংগৃহীত

ঝালকাঠি প্রতিনিধি।। ঝালকাঠিতে সড়ক বিভাগের অধিগ্রহনকৃত সম্পত্তিতে আদালতের নিষেধাজ্ঞা লংঘন করে পাকা ভবন নির্মানকালে অভিযান চালিয়ে পুলিশ
দুই নির্মান শ্রমিককে আটক করেছে। ঝালকাঠি থানা পুলিশের এএসআই রুমান খাকির নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে দু’জনকে আটক ও নির্মানের মালামাল জব্দ করেছে।
৮জুন বুধবার সকাল ১১ ঝালকাঠি শহরের রামনগরে মিল্ক ভিটা কার্যালয়ের বিপরীতে আঞ্চলিক মহাসড়কের এঘটনা ঘটেছে।
মামলার বিবরণ ও আদালতের নির্দেশে উল্লেখ করা হয়েছে, ঝালকাঠি-পিরোজপুর-খুলনা আঞ্চলিক মহাসড়কের জন্য সরকার এল.এ ১০/১৯৮৮-৮৯নং
কেসের মাধ্যমে তফসিলে বর্নিত জমি অধিগ্রন করে ও ১৯৯৩সালে গেজেট প্রকাশিত হয়। উক্ত সম্পত্তির মধ্যে .১১ শতক বিএস রেকর্ডে সওজ বিভাগের বদলে ভূলে
রামনগরের স্থানীয় মানিক হাওলাদার, বাবুল হাওলাদার ও মহসিন হাওলাদারের নামে রকর্ড হয়।

বিষয়টি জানতে পেরে সওজ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী বাদী হয়ে ল্যান্ড সার্ভে ট্রাইব্যুনাল আদালতে রেকর্ড সংশোধনীর জন্য (মোংনং-৪৬৯/২০১৮ (ঝাল)
মামলা দায়ের করে। কিছূদিন পূর্বে এ সম্পত্তিতে বিবাদী মানিক হাওলাদার, বাবুল হাওলাদার ও মহসিন হাওলাদারসহ অজ্ঞাত ৮/১০জন পাকা ভবন নির্মান শুরু
করলে সড়ক বিভাগের সার্ভেয়ার মোঃ মহসিন তাদের বাধা দেয়।
    এতে বিবাদীরা ক্ষিপ্ত হয়ে সড়ক বিভাগের সার্ভেয়ার মোঃ মহসিনকে খুন-জখমের হুমকি দিলে তিনি বাদী হয়ে বিজ্ঞ অতিঃ জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে (এমপি নং-৫১৯/২০২১) মামলা দায়ের করে। আদালত উক্ত সম্পত্তিতে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারী করলেও বিবাদীরা তাদের নির্মান কাজ অব্যহত রাখে।
    গত দুই সপ্তাহ ধরে সড়ক বিভাগের দুই কর্মকর্তা ও স্থানীয় একটি রাজনৈতিক মহলের যোগসাজসে বিবাদীরা আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে
মহাসড়কের উক্তে সম্পত্তিতে রাতের আধারে পাকাভবন নির্মান কাজ করতে থাকে।
বিষয়টি জানতে পেরে বুধবার সকালে অভিযান চালিয়ে পুলিশ অমল মিস্ত্রি ও স্বপন মিস্ত্রি নামে দুই শ্রমিককে আটক ও নির্মান সামগ্রী জব্দ করে।
 

  এ ব্যাপারে ঝালকাঠি সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী শেখ নাবিল হোসেন জানায়, ল্যান্ড সার্ভে ট্রাইব্যুনাল আদালতে মামলা চলমান ও অস্থায়ী
নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্বেও মহাসড়কের জমি দখল করে পাকা স্থাপনা নির্মান ও বানিজ্যিক ষ্টল পরিচালনা করা সম্পূর্ন অবৈধ। বিষয়টি আমরা অবগত হয়েছি।
অবিলম্বে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।