ঝালকাঠিতে কাউন্সিলরসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে  মামলা: পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ

ঝালকাঠিতে কাউন্সিলরসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে  মামলা: পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ
ছবি: সংগৃহীত

আজমীর হোসেন তালুকদার, ঝালকাঠি।। ঝালকাঠি পৌর কাউন্সিলর রেজাউল করিম জাকির, তার ভাই ও পুত্রের বিরুদ্ধে দ্রুত বিচার আইনের বিস্ফোরক দ্রব্যাদি
আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। 

সাবেক পৌর চেয়ারম্যান বেলায়েত হোসেনের পুত্র রিফাত হাসান রুবেল বাদী হয়ে তাদের বাস ভবনে বোমা হামলা, ভাংচুর ও কয়েকজনকে গুরুত্বর জখম করার অভিযোগে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল আদালতে মামলাটি (নং সিআর-১৩/২২ তাং-১৪.০৭.২০২২ইং) দায়ের করেন। দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল আদালতের বিচারক নালিশী মামলাটি তদন্ত পূর্বক প্রতিবেদন প্রদানের জন্য পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেষ্টিগেশন পিবিআইকে নির্দেশ দিয়েছেন।

 রিফাত হাসান রুবেল নালিশী মামলায় উল্লেখ করেন, পূর্ব বিরোধ ও বিগত পৌর নির্বাচনী বিরোধীতার কারনে আসামীরা সাবেক পৌর চেয়ারম্যান বেলায়েত হোসেনের পরিবারের সদস্যদের খুন-জখমের পরিকল্পনা করে আসছে।

গত ১০ জুলাই ঈদুল আজহা রাত ১০টার দিকে পার্শ্ববর্তী প্রতিবেশী জেলা যুবলীগ আহবায়ক, কাউন্সিলর রেজাউল করিম জাকির (৪২) তার ভাই মানিক হাওলাদার (৫৩) ও পুত্র জিসান (২২) এর নেতৃত্বে ১০/১৫জন সন্ত্রাসী দা, চাপাতি, পিস্তল, বোমা ও লাঠি সোটা নিয়ে সাবেক পৌর চেয়ারম্যানের বাড়ীতে হামলা চালিয়ে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে।

    এসময় বাদীর ভাই মনির হোসেন মাহমুদ সোহেল (৫৩) ও ছোট বোন রুমানা তাসমিন শান্তা (৪২) ঘর থেকে বের হয়ে কাউন্সিলর রেজাউল করিম জাকিরকে আক্রমনের কারন জানতে চাইলে তাদের উপর হামলা চালায় ও পিস্তল বের করে হত্যার চেষ্টা চালায়। হামলায় জড়িত তাদের সহযোগীরা বাস ভবনে এলোপাথারি হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর করে ত্রাসের রাজত্ব কায়েমসহ কাউন্সিলর পুত্র
জিসান বোমা নিক্ষেপ করলে বিকট শব্দে এলাকা প্রকম্পিত হয়ে ওঠে।
   প্রানের ভয়ে বাদীর পরিবারের সবাই বাস ভবনে প্রবেশ কালে হামলাকারীদের সংযত করার চেষ্টাকালে কাউন্সিলরের ভাই মানিক হাওলাদার ধারালো রামদা দিয়ে
বাদীর ছোট ভাইয়ের ভায়রা নাসির নকিবকে (৫৪) মাথায় কোপ দিয়ে গুরুত্বর জখম করে। আহতদের চিকিৎসা শেষে থানায় অভিযোগ প্রদান করলেও ওসি খলিলুর রহমান
মামলা না নেয়ায় আদালতে মামলা করেছেন বলে বাদী রুবেল জানান।
   এবিষয় জেলা আ’লীগ শ্রমবিষয়ক সম্পাদক এসআরএম মানিক বলেন, আমার ভাতিজা
শিশু রাইয়ান আটকে পটকা ফুটানোর অভিযোগ দিয়ে চেয়ারম্যানের ছেলে-বৌ ও আত্মীয়রা অকথ্য গালাগাল করে। সে ভয়ে কাঁদতে কাঁদতে বাসায় আসলে আমি বিষয়টি জেনে সাবেক চেয়ারম্যানের ছোট ভাই হিমু কাকার কাছে অভিযোগ জানাই। এতে আরো ক্ষিপ্ত হয়ে চেয়ারম্যানের ছেলে জুয়েল আমাকে ফোনে গালাগাল করলে।
    এ ব্যপারে ঝালকাঠি পৌরসভার কাউন্সিলর ও জেলা যুবলীগের আহবায়ক রেজাউল করিম জাকির জানান, ঈদের দিন রাতে কে বা কারা প্রতিবেশী মরহুম বেলায়েত
চেয়ারম্যানের বাড়ির মধ্যে আতশবাজি ফোটায়। এ নিয়ে তারা আমার হাফেজি পড়ুয়া নয় বছরের ছেলে রাইয়ানকে সন্দেহের বশে আটক করে গালিগালাজ ও মারধর করে। এ ঘটনা নিয়ে আমার আত্মীয় স্বজন ও সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনা সৃস্টি হলে আমি ও আমার বড় ভাই মানিক সকলকে শান্ত করার চেস্টা কালে নাসির নকিব নামে একজন ধাক্কাধাক্কিতে পড়ে গিয়ে আহত হয়। চেয়ারম্যান বাড়িতে কোন হামলা বা বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেনি। আমাকে রাজনৈতিকভাবে কোনঠাসা করতে মিথ্যা অভিযোগে এহেন মামলা করা হয়েছে ।