টানা ৩০ বছর শিক্ষকতার পর অবসরে গেলেন অধ্যক্ষ শামছুল ইসলাম

টানা ৩০ বছর শিক্ষকতার পর অবসরে গেলেন অধ্যক্ষ শামছুল ইসলাম
ছবিঃ সংগৃহীত

সিলেট প্রতিনিধি।। টানা ৩০ বছর শিক্ষকতার পর অবসরে গেলেন  দক্ষিণসুরমা সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ শামছুল ইসলাম। গতকাল সোমবার দুপুরে কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ অধ্যাপক মতিউর রহমানের নিকট তিনি দায়িত্ব হস্তান্তর করেন।

 অধ্যক্ষ শামছুল ইসলামের অবসরগমন উপলক্ষে কলেজ শিক্ষক পর্ষদ বর্নাঢ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আওয়ামীলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক, মাহাত্মা গান্ধী ট্রাস্টের ট্রাস্টি, সিলেটের সাবেক পিপি ও কলেজ গভর্নিং বডির সাবেক সদস্য এডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ বলেছেন, সিলেট অঞ্চলের মধ্যে দক্ষিণসুরমা অন্যতম একটি ঐতিহ্যবাহি এলাকা। দক্ষিণসুরমার কৃতি সন্তানরা শিক্ষার প্রসারে এই কলেজ প্রতিষ্ঠা করেছেন। আজ দক্ষিণসুরমা সরকারি কলেজ সিলেট অঞ্চলের অন্যতম শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পরিনত হয়েছে। আগামি দিনে এটি বিশ্ববিদ্যালয়ে রুপান্তরিত হতে পারে। জননেত্রী শেখ হাসিনা এই কলেজকে সরকারিকরণ করেছেন। সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী ও অধ্যক্ষ শামছুল ইসলামের হাত ধরেই  কলেজটি আজ পর্যায়ে এসেছে। 
অধ্যাপক শামছুল ইসলাম কলেজের অধ্যক্ষ হিসেবে দীর্ঘদিন সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। কলেজের উন্নয়ন -অগ্রগতিতে তার অনন্য ভূমিকা রয়েছে। একজন সফল অধ্যক্ষ আমার সহোদর যা আমার জন্যে নিঃসন্দেহে গৌরবের। অতীতের ধারাবাহিকতায় আগামীতেও কলেজটি এগিয়ে যাবে। 
কলেজ শিক্ষক পর্ষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক কাজরী রানী ধরের সভাপতিত্বে, প্রভাষক শ্যামলী চক্রবর্তী ও প্রভাষক খালেদ আহমদের যৌথ পরিচালনায় এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন, কলেজ গভর্নিং বডির সাবেক সদস্য ও সিলেটের সাবেক পিপি এডভোকেট এমাদ উল্লাহ শহিদুল ইসলাম শাহীন, গভর্নিং বডির সাবেক সদস্য ও সিলেটের পিপি এডভোকেট নিজাম উদ্দিন , গভর্নিং বডির সাবেক সদস্য ও দেশের প্রথম করদাতা বীরমুক্তিযোদ্ধা সাইফুল আলম, গভর্নিং বডির সাবেক সদস্য ও সিলেট চেম্বারের সাবেক পরিচালক শাহ আলম,গভর্নিং বডির সাবেক শাহ নিজাম উদ্দিন, মদনমোহন কলেজের উপাধ্যক্ষ অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম, সোস্যাল ইসলামী ব্যাংকের এভিপি ও দক্ষিণসুরমা শাখার ম্যানেজার  মো.আশরাফুল হুদা, মদনমোহন কলেজের সহযোগী অধ্যাপক আহমদ হোসেন ও অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা সার্জেন্ট আবুল হোসেন। 
বিদায়ী অধ্যক্ষ শামছুল ইসলাম কলেজে তাঁর তিন দশকের স্মৃতি তুলে ধরে বার বার কান্নায় ভেঙে পড়েন। তার ৩০ বছরের কর্ম জীবনের কলেজের উন্নয়নসহ সরকারিকরনের বিষয় বর্ননা করে বলেন, দক্ষিণসুরমা কলেজ আমার জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ। এই কলেজে আমার জীবনের অনেক সময় কেটেছে। আগামী দিনেও কলেজের পাশে থাকব। 
গভর্নিং বডির সাবেক সদস্যরা তাদের বক্তব্যে কলেজ প্রতিষ্ঠা থেকে এপর্যন্ত তাদের নানা স্মৃতি তুলে ধরেন। সাবেক সংসদ সদস্য শফি আহমেদ চৌধুরী, সুবেদার মেজর (অব.) আব্দুল হাফিজ , সিরাজ উদ্দিন আহমদ,ডা. আব্দুল হাই, মঈনুল ইসলাম, আব্দুল জব্বার জলিলসহ কলেজের উন্নয়নে অগ্রনী ভূমিকা রাখা ব্যক্তিদের নাম উল্লেখ করেন বক্তারা।  
অনুষ্ঠানে কলেজের শিক্ষকবৃন্দের মধ্যে আশরাফুল হক,রাহেনা হক,ছালমা ইয়াছমিন,মতিলাল দাশ,মুহিবুর রহমান, আতাউর রহমান, সুভাষ চন্দ্র সাহা,জয়নুল ইসলাম, পলাশ রঞ্জন দাশ,ময়নুল হক,নাফিস সাকিনা,কানিজ ফাতেমা,শুকরিয়া জাহান,ফাতেমা খানম, শিল্পী মালাকার,মাহমুদা আক্তার,শাহরিয়ার খান,গিলমান আলী,আতাউর রহমান ভূঞা,শফিকুল ইসলাম, নুসরাত ফাতেমা,মাহবুবা বেগম,বিশ্বজিৎ ধাম,খালেদ আহমদ, শাহ আলম,রেজওয়ানা তাসলিম,মোস্তাফিজুর রহমান, আব্দুল বাতেন,আব্দুন নুর শামীম উপস্থিত ছিলেন। 
অনুষ্ঠানে কলেজের বিদায়ী অধ্যক্ষ শামছুল ইসলাম ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ অধ্যাপক মতিউর রহমানের নিকট দায়িত্ব হস্তান্তর করেন। প্রসঙ্গত, ১৯৯১ সালে দক্ষিণসুরমা কলেজে শিক্ষক হিসেবে শামছুল ইসলাম যোগদান করেন। এরপর কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ ও অধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন করেন তিনি। বিজ্ঞপ্তি।