ঠাকুরগাঁওয়ে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর দখল ও মারপিটের অভিযােগে নারী ইউপি সদস্য গ্রেফতার

ঠাকুরগাঁওয়ে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর দখল ও মারপিটের অভিযােগে নারী ইউপি সদস্য গ্রেফতার
ছবিঃ সংগৃহীত

বিকাশ রায় চৌধুরী,ঠাকুরগাঁও।। ২৩ আগস্ট, সোমবার।। সদর উপজলায় প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর দখল করে মারপিট করে পরিচিত মানুষদের দেয়ার অভিযােগে এক নারী ইউপি সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। 

গত শনিবার চিলারং ইউনিয়নের আদালিহাটের ধনিবস্তি গুচ্ছগ্রামে এ ঘটনা ঘটে। 

রুবি আক্তার (৩২) চিলারং ইউনিয়নের ৭, ৮ ও ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সংরক্ষিত নারী ইউপি সদস্য এবং ইউনিয়ন মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি। 

এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। ওই ঘটনায় পরদিন নারী ইউপি সদস্যর মারপিট আহত আনজু আক্তার বাদী হয়ে সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ধনিবস্তি গুচ্ছগ্রাম এলাকায় রয়েছে ৫৬টি ঘর। আর এসব ঘর অসহায় মানুষেরা বসবাস করে আসছিল। গুচ্ছগ্রামের তালিকায় আনজু আক্তার, লাইলি বেগম ও জুলেখা বেগমের নাম আসে। সে অনুযায়ী সাব-রেজিষ্ট্রার অফিস ঘরগুলা তাদরকে রেজিষ্ট্রি করে দেয়া হয়। পরে আনজুসহ অন্যান্যরা সেখানে বসবাস শুরু করেন। এ অবস্থায় নারী ইউপি সদস্য রুবি আক্তারের নেতৃত্বে ১০/১২ জনের একটি দল ঘর ছেড়ে দেওয়ার কথা বলে আনজু ও তার স্বামীকে মারপিট করে শ্লীলতাহানী ঘটায়। 

চিলারং ইউপি চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী জানান, ঘটনাটি জানার পরে তাৎক্ষনিক বিষয়টি সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ আল মামুনকে জানানা হয়। পরে আনজু আক্তার, লাইলি বেগম ও জুলেখা বেগম সদর ইউএনও বরাবরে একটি অভিযােগ দায়ের করেছেন বলে জেনেছি। 

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পাওয়া তিনজন ভুক্তভােগীর লিখিত অভিযােগ পাওয়ার পরে গত রােববার দুপুরে পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে আলাদিহাটের গুচ্ছগ্রামে যাওয়া হয়। এরপর ঐ গুছগ্রামে থেকে নারী ইউপি সদস্য রুবি আক্তারকে গ্রেফতার করা হয়। পরে আদালতের মাধ্যমে তাকে জেলহাজতে প্রেরন করা হয়েছে বলে জেনেছি।