ডেপুটি স্পিকারের আসনে  আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী যারা

ডেপুটি স্পিকারের আসনে  আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী যারা
ছবি: সংগৃহীত

আবু তাহের, ষ্টাফ রিপোর্টার।।জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার সদ্য প্রয়াত অ্যাড. ফজলে রাব্বী মিয়ার আসনটি গত ২৪ জুলাই শূন্য ঘোষণা করে প্রজ্ঞাপন জারি করে সংসদ সচিবালয়। নিয়মানুযায়ী গাইবান্ধা-৫ (ফুলছড়ি-সাঘাটা) আসনে আগামী ৯০ দিনের মধ্যে উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

 এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকসহ বিভিন্ন চায়ের দোকান ও আড্ডায় শুরু হয়েছে জল্পনা- কল্পনা। কে হচ্ছেন নৌকার মাঝি? 

স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের আলোচনায় প্রশ্ন দেখা দিয়েছে, কে পাচ্ছেন দলীয় মনোনয়ন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ও মানুষের জল্পনা-কল্পনা এবং আওয়ামী লীগ নেতাদের আলোচনা সূত্রে জানা যায়, গাইবান্ধা-৫ (ফুলছড়ি-সাঘাটা) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ৩ জন। তারা হলেন- সদ্য প্রয়াত অ্যাড. ফজলে রাব্বী মিয়ার কন্যা ফারজানা রাব্বী বুবলী, ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সভাপতি মাহমুদ হাসান রিপন ও ফুলছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি জি.এম সেলিম পারভেজ। 


জানা যায়, ফারজানা রাব্বী বুবলী ফুলছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, তার স্বামী বিচারপতি খুরশীদ আলম সরকার। ফজলে রাব্বী মিয়ার কন্যা হিসেবে তিনি রাজনীতিতে বাবার উত্তরাধিকার দাবি করছেন বলে জানা গেছে। 

জি.এম সেলিম পারভেজ ফুলছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি। তিনি উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন। উপজেলা আওয়ামী লীগের দুই বার সাধারণ সম্পাদক ও দ্বিতীয় বারের মতো ফুলছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন তিনি।
 
অপরদিকে, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ছিলেন মাহমুদ হাসান রিপন। তিনি আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সহ-সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। পাশাপাশি গাইবান্ধা-৫ (ফুলছড়ি-সাঘাটা) নির্বাচনী এলাকায় দীর্ঘদিন থেকে বিভিন্ন রাজনৈতিক কর্মসূচিতে সক্রিয় ভূমিকা পালন করছেন। 

এ বিষয়ে মাহাবুব জয় নামে এক ব্যক্তি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে লিখেছেন, সাঘাটার কন্যা, ফুলছড়ির পুত্রবধু হতে যাচ্ছেন আগামি দিনের ফুলছড়ি-সাঘাটার নৌকার মাঝি। তার মতে জাতীয় নির্বাচনে মনোনয়ন দৌড়ে অনেকটাই এগিয়ে আছেন ফারজানা রাব্বী বুবলী। তিনি মনে করেন ডেপুটি স্পিকার তাঁর দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক জীবনে গড়ে তুলেছিলেন নিঃস্বার্থ বিশাল কর্মী বাহিনী। এর সাথে তার স্বামী বিচারপতির আত্মীয়-স্বজন মিলে এর সংখ্যা প্রায় পঞ্চাশ হাজার। যারা সবাই তাকে জয়ী করতে একসাথে কাজ করবেন।

সাঘাটা উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা মাজহারুল ইসলাম বলেন, ফারজানা রাব্বী বুবলীর রয়েছে বিশাল ভোট ব্যাংক। এছাড়া এই মুহূর্তে তার প্রতি রয়েছে মানুষের ‘সিমপ্যাথি’। তিনি নৌকা মার্কার নমিনেশন পেলে দলমত নির্বিশেষে ফুলছড়ি-সাঘাটার মানুষ তাকে ভোট দিয়ে ডেপুটি স্পিকারের সম্মান অক্ষুন্ন রাখবেন।

আরিফ নামে একজন ফেসবুকে লিখেছেন দেশরতœ জননেত্রী শেখ হাসিনার আস্থাভাজন, ১/১১ দুঃসময়ের কান্ডারি, দেশরতœ শেখ হাসিনা ও গণতন্ত্র মুক্তির অগ্রনায়ক, তৎকালীন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাহমুদ হাসান রিপন যিনি আজ স্বমহিমায় সাঘাটা-ফুলছড়িতে অতীতের সকল নেতাদেরকে ছেড়ে জনপ্রিয়তায় শীর্ষে। 

ফুলছড়ির আওয়ামী লীগ নেতা আসাদুজ্জামান বাদশা বলেন, দীর্ঘদিন থেকে ফুলছড়ি-সাঘাটার আওয়ামী লীগকে আগলে রেখেছেন মাহমুদ হাসান রিপন। উপ-নির্বাচনে একজন ত্যাগী নেতা হিসেবে মাহমুদ হাসান রিপন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাবেন। তার প্রচুর জনসমর্থন রয়েছে। তাই তাকে মনোনয়ন দিলে নৌকা মার্কার বিজয় নিশ্চিত।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ফুলছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জি.এম সেলিম পারভেজ বলেন, আমি দীর্ঘদিন থেকে আওয়ামী লীগের রাজনীতি করি। এর আগেও আমি দুই বার দলীয় মনোনয়ন সংগ্রহ করেছিলাম। এবারের উপ-নির্বাচনে আমি দলীয় মনোনয়ন সংগ্রহ করবো। আশা করছি মনোনয়ন পাবো।

উল্লেখ্য, গাইবান্ধা-৫ (ফুলছড়ি-সাঘাটা) আসনের সংসদ সদস্য ও জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার অ্যাড. ফজলে রাব্বী মিয়া গত ২২ জুলাই নিউইয়র্কের মাউন্ট সিনাই হাসপাতালে স্থানীয় সময় বিকেল ৪টায় (বাংলাদেশ সময় ২৩ জুলাই রাত ২টায়) চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।