থানার ভেন্টিলেটর দিয়ে চুরি মামলায় গ্রেফতার নারী আসামির পলায়ন

থানার ভেন্টিলেটর দিয়ে চুরি মামলায় গ্রেফতার নারী আসামির পলায়ন
ছবি: সংগৃহীত

টয়লেটে যাবার কথা বলে রাজধানীর গুলশান থানার টয়লেটের ভেন্টিলেটর দিয়ে পালিয়ে যায় চুরি মামলার আসামি খাদিজা আক্তার। ২৩ আগষ্ট দায়ের করা একটি চুরি মামলায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে গত শুক্রবার গ্রেফতার করে পুলিশ।  গ্রেফতারের সময় তার কাছ থেকে একটি স্বর্ণের চেইন উদ্ধার করা হয়। 

এদিকে ভেন্টিলেটর দিয়ে পালিয়ে যাওয়ার একদিন পার হলেও এখন পর্যন্ত খাদিজার কোন খবর মেলেনি। তাকে গ্রেফতার করতে বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালানো হচ্ছে বলে জানা যায়। 

এ বিষয়ে গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাসান জানান ‘আসামিকে খুঁজে বের করার চেষ্টা চলছে। একাধিক সিসিটিভি ফুটেজ বিশ্লেষণ চলছে। আশা করি, খুব শিগগির তাকে ধরতে পারবো।’

ওসি জানান, গত শুক্রবার রাতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে খাদিজাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। সেসময় তার কাছ থেকে চুরি হওয়া একটি স্বর্ণের চেইন উদ্ধার করা হয়। পরদিন রাত সাড়ে ৮টার দিকে টয়লেটে যাওয়ার কথা জানান খাদিজা। তখন একজন নারী পুলিশ সদস্য তাকে থানার একটি টয়লেটে নিয়ে যান। আসামি ওই টয়লেটের ভেন্টিলেটর দিয়ে পালিয়ে যান।

মামলার বিবরণে প্রকাশ, গুলশান-২ এলাকার একটি বাড়িতে গৃহকর্মীর কাজ করতেন খাদিজা আক্তার। অসুস্থতার কথা বলে গত ১৭ আগস্ট তিনি চলে যান। ওইদিনই বাসার লোকজন আলমারির ড্রয়ার খুলে দেখেন, সেখানে থাকা চার ভরি চার আনার স্বর্ণালঙ্কার নেই। আরেকটি ড্রয়ারে থাকা এক লাখ ৭৫ হাজার টাকাও নেই।

 বাসার সিসিটিভির ফুটেজ যাচাই করে দেখা যায়, খাদিজা  ১৬ আগস্ট বেলা ৩টা ১২ মিনিট থেকে ৩টা ১৪ মিনিটের মধ্যে ড্রয়ার খুলে স্বর্ণালঙ্কার ও টাকা নিয়ে চলে যায়। চুরির বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পর খাদিজার বিরুদ্ধে মামলা রুজু করা হয়।