নির্বাচনী সহিংসতায় মামলা, সন্তানরা বাবার অপেক্ষায়!

নির্বাচনী সহিংসতায় মামলা, সন্তানরা বাবার অপেক্ষায়!
ছবি: সংগৃহীত

বিকাশ রায় চৌধুরী।।স্ত্রী সন্তান ও নিজ বাড়ি ছেড়ে মামলা আতঙ্কে পালিয়ে থাকায় সন্তান তার বাবাকে খুঁজছে, মাকে কেঁদে কেঁদে বলছে কখন আসবে বাবা।আমি বিস্কুট খাবো।

গেল কয়েক দিন থেকে বাবাকে দেখতে না পেয়ে কাঁদছিল ঠাকুরগাঁও রাণীশকলৈ উপজেলার বাচোর ইউনিয়নের মহেশপুর গ্রামের কয়েকটি পরিবারের শিশু।

গেল ২৭ জুলাই ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে পুলিশের সাথে সংঘর্ষের ঘটনায় প্রিজাইডিং অফিসার  পুলিশের পক্ষ থেকে অজ্ঞাত আটশ জনের বিরুদ্ধে মামলা হলে এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।

দূর থেকে মানুষের আওয়াজ পেলেই রাস্তায় ছুটে আসে কোমলমতি শিশুরা। কিছু না বুঝলেও বাবার অনুপস্থিতি তাদের কাঁদায়।

বাবার স্নেহ আদর পেয়ে ছোট থেকে বড় হতে শুরু করলেও বর্তমান পরিস্থিতি দুরে ঠেলে দিয়েছে সেই গ্রামসহ আশাপাশে বেশকিছু পরিবারকে। নির্বাচনী সহিংসতার ঘটনায় আতঙ্কে নারীরাও।

সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, যারা গ্রেপ্তার আতঙ্কে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন তারা অনেকেই বাচোর ইউনিয়নের ভোটার নন। কেউ নদী ভাঙ্গনে নিঃস্ব হয়ে বগুড়া থেকে এসেছেন, কেউ বা হাতিবান্ধা থেকে আবার কেউ এসেছে ঢাকার সাভার থেকে। এই ইউনিয়নের ভোটার না হয়েও মা-বাবা, স্ত্রী ও শিশু সন্তান রেখে পালিয়ে বেড়াতে হচ্ছে তাদের।

মহেশপুর গ্রামের শিশু রাসেল  ইসরাফিলের মতো কয়েকজন ঢাকাপ্রকাশকে জানায়, আমার বাবা পুলিশের ভয়ে বাড়িতে থাকে না। ছোট ভাইয়া বাবার জন্য কাঁদে। রাতে অনেক ভয় করে। আমাদের কষ্ট হয়। আমাদের গ্রামে একটা বাচ্চা মারা গেছে। এই জন্য আমাদের বাবা বাড়িতে থাকতে পারে না। স্কুল যেতে পারিনা। বাড়িতে বাজার নেই মা রান্না করে না। আজ বাবা থাকলে খাবারের কষ্ট হতো না। একদিন, দুইদিন পর পর এখানে দু-তিনটা পুলিশের গাড়ি আসে। মা-চাচিদের কি জানি জিজ্ঞাসা করে আবার চলে যায়। তখন আরো ভয় লাগে। এমন অসহাত্বের কথা শরীর শিউরে যায়। তারা চায় স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে।

উল্লেখ্য, সাত মাস বয়সী নিহত সুরাইয়াকে নিয়ে মা মিনারা বেগম রাণীশংকৈল উপজেলার বাচোর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের ভাংবাড়ি ভিএফ নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্র এলাকায় অবস্থান করছিলেন। ফলাফলকে কেন্দ্র করে পরাজিত ইউপি সদস্য সমর্থকদের সাথে আইনসৃংখলাবাহিনীর সংর্ঘষ হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের পুলিশ গুলি ছুড়লে গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয় শিশু সুরাইয়া।

তবে সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে প্রকৃত দোষীদের আইনের আওতায় আনার আশ্বাস দিয়েছেন ঠাকুরগাঁও পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর হোসেন।