পঞ্চগড় সীমান্তের ভারতীয় এলাকায় বাংলাদেশী যুবককে পিটিয়ে হত্যা

পঞ্চগড় সীমান্তের ভারতীয় এলাকায় বাংলাদেশী যুবককে পিটিয়ে হত্যা
ছবি: সংগৃহীত

লিটন প্রধান। নিজস্ব প্রতিবেদক।।পঞ্চগড়ে সীমান্ত অতিক্রম করে ভারতে প্রবেশে করায় গরু চোর সন্দেহে সালাম (৩৫) নামে এক বাংলাদেশী যুবকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। দিনের আলোয় ভারতীয় এলাকার সীমান্তের চাবাগান থেকে ওই বাংলাদেশীকে যুবকে ধরে চোর সন্দেহে গণধোলাই দেয় ভারতীয় স্থানীয়রা। 

পঞ্চগড়ের সাতমেরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম রবি জানান, সালাম নামে ওই যুবক একজন গরু ব্যবসায়ী। এ ঘটনায় নিহতের পরিবার মরদেহ দেশে ফিরিয়ে আনতে বিজিবি কাছে সহায়তা চেয়ে একটি আবেদন করেছে। বিজিবি ও ভারতীয় সীমান্ত বাহিনীর (বিএসএফ) সাথে যোগাযোগ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করছে। আশা করি সকল প্রক্রিয়া শেষে মরদেহ ফিরিয়ে আনা হবে।

বিভিন্ন সূত্রে ও ভারতীয় গণমাধ্যমে জানা যায়, ওই বাংলাদেশি যুবক রাজগঞ্জ ব্লকের ভারত - বাংলাদেশ সীমান্ত এলাকার  লাগোয়া ১৯৫ ব্যাটলিয়নের চাউলহাটি সংলগ্ন বড়ুয়া পাড়া গ্রামে বুধবার রাত তিনটা নাগাদ দুটি বাড়িতে গরুর চুরি করতে একদল চোরের সাথে ঢুকে। এসময় স্থানীয়রা টের পেয়ে চিৎকার করলে গরু রেখে চোরেরা পালিয়ে যায়। 

এসময় সীমান্ত লাগোয়া গ্রামে চা বাগানে চোরেরা আশ্রয় নিলে রাত থেকে সকাল পর্যন্ত গ্রামবাসীদের পাহারায় সকালের সূর্যের আলোয় তাকে ধরে স্থানীয়রা। একই সময় গ্রামবাসীদের গণধোলাইয়ের মৃত্যু হয় ওই বাংলাদেশি যুবকের। ভারতের রাজগঞ্জ থানার পুলিশ খবর পেয়ে বিষয়টি তদন্তে নেমেছে। এদিকে বিজিবিও বিষয়টি তদন্ত করে দেখছে বলে জানা গেছে।

জানা যায়, মঙ্গলবার (২৩ আগস্ট) দিনগত গভির রাতে ভারতের জলপাইগুড়ি জেলার রাজগঞ্জ ব্লকের ভারত - বাংলাদেশ সীমান্ত এলাকার চাউলহাটি সংলগ্ন বড়ুয়া পাড়া গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে। নিহত বাংলাদেশি যুবক সালাম পঞ্চগড় সদরের সাতমেরা ইউনিয়নের কাহারপাড়া এলাকার মৃত শহিদুল ইসলামের ছেলে।