প্রচারণার প্রথম দিনেই মেম্বার প্রার্থী মোহন তালুকদার বাজিমাৎ 

প্রচারণার প্রথম দিনেই মেম্বার প্রার্থী মোহন তালুকদার বাজিমাৎ 
 এম. মতিন, চট্টগ্রাম প্রতিনিধি। আগামী ২৮ নভেম্বর রাঙ্গুনিয়ার ১৩ নং ইসলামপুর ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এই ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডে ইউপি সদস্য প্রার্থী হয়েছেন ৩ জন। এর মধ্যে জনপ্রিয়তা ও আলোচনার শীর্ষে রয়েছেন বর্তমান মেম্বার, রাজানগরের দানবীর হাজী রহম আলী তালুকদারের দৌহিত্র ও সমাজসেবক মরহুম আবুল হাশেম তালুকদারের একমাত্র সন্তান দানবীর মহিউদ্দিন তালুকদার মোহন। 
মানবিক ও সমাজসেবার চিন্তা ধারায় যুক্ত থেকে দীর্ঘদিন রাজানগর ও ইসলামপুর ইউনিয়নের সর্বস্তরের জনগণের পাশে থেকে সেবা করে যাচ্ছেন। ইতিমধ্যে আসন্ন ইউপি নির্বাচনে ইসলামপুর ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ড থেকে আবারও মেম্বার প্রার্থী হয়ে জনগণের ব্যাপক সাড়া পেয়েছেন। একই সাথে তাকে নিয়ে চলছে সর্বত্র আলোচনা ও নানা জল্পনা-কল্পনা। 
নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর ইসলামপুর ইউনিয়নসহ ৩নং ওয়ার্ডের সকল গ্রামের সর্বস্তরের মানুষের জোর দাবির মুখে মহিউদ্দিন তালুকদার মোহন আবারও মেম্বার পদে নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নেন এবং মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। যাচাই-বাছাই শেষে ৪ নভেম্বর তাঁর মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করে ১২ নভেম্বর 'ফুটবল' প্রতীক দেন নির্বাচন কমিশন। 
সরেজমিনে জানা যায়, ১নং রাজানগর ও ইসলামপুর ইউনিয়নের দানবীর ও সুশীল সমাজের পরিচিত মুখ হাজী রহম আলী তালুকদার ও তার ছেলে মরহুম আবুল হাশেম তালুকদার। দাদা ও পিতার জনকল্যাণের পথ ধরেই নিজ ইসলামপুর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন তিনি। এলাকার জনসাধারণের যেকোনো ছোট-বড় সমস্যায় দ্রুত ছুটে গিয়ে সমাধান করাসহ মগাইছড়ি এলাকার নানা উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকেন এই মেম্বার পদপ্রার্থী। ২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বীয় মেম্বার নির্বাচিত হয়ে আলোচনায় আসে অপেক্ষাকৃত তরুণ মহিউদ্দিন তালুকদার মোহন। পরবর্তী ৫টি বছর ৩নং ওয়ার্ডে ব্যাপক উন্নয়নকাজ করেন তিনি। ইউনিয়ন পরিষদ সংশ্লিষ্ট কাজের বাইরেও ওয়ার্ডবাসীর বিভিন্ন সমস্যায় তিনি এগিয়ে যেতেন সবসময়। মেম্বার থাকা অবস্থায় তাঁর কাছে কেউ অসৌজন্যমূলক আচরণ পাননি বলে ওয়ার্ডবাসীর মন্তব্য। যে কারণে এবারের নির্বাচনেও আলোচনার শীর্ষে রয়েছেন মহিউদ্দিন তালুকদার মোহন এবং তাঁকেই সব থেকে যোগ্য প্রার্থী মনে করছেন ৩নং ওয়ার্ডবাসী। এলক্ষ্যে এলাকার বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ নিজ থেকেই তার পক্ষে প্রচারণাসহ দোয়া চেয়ে জনসাধারণের দ্বারপ্রান্তে যাচ্ছেন।
৩ নং মগাইছড়িওয়ার্ডের হাজী আমিনুর রহমান কোম্পানি জানান, গত ৫ বছর মোহন মেম্বার এলাকার বিচার-সালিশসহ বিভিন্ন বিষয়ে তাঁকে পাশে পেয়েছেন। করোনা মহামারির সময়ে দরিদ্র-অসহায় পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিয়েও মানুষের ব্যাপক ভালোবাসা পেয়েছেন। তার বিভিন্ন সামাজিক উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডের কারনে তিনি এলাকার আবাল বৃদ্ধ বনিতার মধ্যমনি হয়ে উঠেছেন।
মহিউদ্দিন তালুকদার মোহন বলেন, বিগত ৫ বছর ৩নং ওয়ার্ডের সেবক (মেম্বার) থাকা অবস্থায় এলাকাবাসীর জন্য আমার সর্বোচ্চটুকু উজাড় করে দেওয়ার চেষ্টা করেছি। মহামারি করোনাকালীন সময়ে ওয়়ার্ডের প্রায় ৬শ অসহায় গরীব মানুষের দৌড়গোড়ায় ত্রাণ পৌঁছে দিয়েছি। এছাড়াও সরকারী চাল, বিধবা, বয়স্ক, প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড, খাবার পানির মটার, প্রধানমন্ত্রীর ঈদ বোনাস, কৃষি ভর্তুকির স্যার, বীজ, ভিজিএফ, দুঃস্থ ভাতা ও মাতৃত্বকালীন ভাতা প্রাপ্য ব্যাক্তিদের কাছে স্বচ্ছতা সাথেে পৌঁছে দিয়েছি। দূর্নীতির ছিটেফোঁটাও আমাকে স্পর্শ করেনি।
তিনি আরও বলেন, আমি সেবার মানুষিকতা নিয়ে আবারও মেম্বার পদপ্রার্থী হয়েছি। আমার বিশ্বাস, এলাকাবাসী আগামী ২৮ নভেম্বর ব্যালটের মাধ্যমে ফুটবল মার্কায় ভোট দিয়ে আমার প্রতি তাদের ভালোবাসা ও স্নেহের বহিঃপ্রকাশ ঘটাবেন।