প্রেমিকা আত্মহত্যার বিচার না পাওয়ায় প্রেমিকের আত্মহত্যার চেষ্টা

প্রেমিকা আত্মহত্যার বিচার না পাওয়ায় প্রেমিকের আত্মহত্যার চেষ্টা
ছবি: সংগৃহীত

শাহজাহান চৌধুরী শাহীন,  কক্সবাজার।। সুবহা নামের কিশোরী আত্মহননের বিচার না পাওয়ার রাাগে,  ক্ষোভে অভিমানে থানা ভবনের তিন তলা থেকে আত্মহত্যার চেষ্টা চালিয়েছে ওসাইমিম নামের এক কিশোর।

গত শনিবার বিকালে কক্সবাজার সদর মডেল কক্সবাজার সদর মডেল থানা ভবনের তিনতলার সানসেটে উঠে আত্মহত্যার চেষ্টা করা ওসাইমিম উখিয়ার পালংখালী ইউনিয়নের শাহজাহানের ছেলে। কক্সবাজার শহরের বায়তুশ শরফ জব্বারিয়া একাডেমির ১০ম শ্রেণির ছাত্র ও তারা স্বপরিবার বর্তমানে শহরের পাহাড়তলী কচ্ছপিয়াপুকুর এলাকায় থাকেন। থানা ভবন নির্মাণ কাজের জন্য তৈরী করা অস্থায়ী সিঁড়ি বেয়ে তিন তলার উপর থেকে যখন আত্মহত্যার চেষ্টা করছিলেন, তখন কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি মুনীর উল গীয়াস বেশ ম্যগাফোনে বেশ কিছুক্ষণ বুঝানোর পর এবং তার সকল সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দেওয়ায় এই কিশোর অবশেষে নিচে নেমে আসতে রাজি হন। এরপর তাকে রক্তাক্ত অবস্থায়  উদ্ধার করে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। আত্মহননের চেষ্টার আগে ওসাইমিম ব্লেড দিয়ে শরীরে আঘাত করে নিজেকে রক্তাক্ত করে।

আত্মহত্যার চেষ্টার আগে তিনি একটি সুইসাইড নোট লিখেন। ওসাইমিমের ব্যাগ থেকে সুইসাইড নোটটিও উদ্ধার করে পুলিশ। ওই সুইসাইড নোটে পুলিশকে সুবহা নামে নিহত এক কিশোরীকে ন্যায় বিচার পাইয়ে দিতে অনুরোধ জানানো হয়।
কথিত সুবহাকে নিজের প্রেমিকা পরিচয় দিয়ে সুইসাইড নোটে ওসাইমিম লিখেন, ২০২০ সালে ওই সুবহার সাথে পরিচয় হয় তার। তবে কিভাবে পরিচয় সেটি নোটে উল্লেখ করেনি । গত রমজানে সুবহার বাবা সুবহাকে যৌন নির্যাতনের চেষ্টা করে। এঘটনায় সুবহার বাবা মায়ের সংসার ভেঙে যায়। এক পর্যায়ে বাবার যৌন নির্যাতনের চেষ্টা এবং পারিবারিক কলহের কারণে সুবহা আত্মহত্যা করেছে বলে ওই সুইসাইড নোটে উল্লেখ করে ওসাইমিম।
সুবহার বাড়ি নারায়নগঞ্জের হাজিগঞ্জে উল্লেখ করে ওসাইমিম নোটে আরও লিখেন, যাদের কারণে সুবহা পৃথিবী থেকে বিদায় নিয়েছে তাদের বিচারের মুখোমুখি করতে সে অনেকের কাছে ধর্ণা দিয়েছেন। কিন্তু কেউই তাকে সহযোগিতা করেনি। সুবহাকে ন্যায় বিচার পাইয়ে দিতে না পারায় সেও পৃথিবী ছেড়ে চলে যাচ্ছেন বলে সুইসাইড নোটে উল্লেখ করে ওয়াইমিম। 

কথিত সুবহা নামের ওই কিশোরীর মৃত্যুর বিষয়টি সবার সামনে আনার জন্য থানা ভবনকে সুইসাইডের জন্য বেছে নেন বলে দাবী করেন এ কিশোর। এসব বিষয় নিয়ে হাসপাতালেই কথা বলেন ওসাইমিম।

ওসাইমিমের মা ও বন্ধুরা জানান, এর আগেও ব্লেড দিয়ে আঘাত করে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করেছিল। মায়ের দাবী, এসএসসি পরীক্ষা সামনে চলে আসায় মোবাইল ব্যবহার কমানোর জন্য তাকে শাসানো হয়। এটাকে কেন্দ্র করে আত্মহত্যার চেষ্টা বলে দাবী তার মায়ের।

কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি মনীর উল গীয়াস জানান, সুইসাইড নোটে উল্লেখ করা বিষয়গুলো খতিয়ে দেখার পাশাপাশি ওই কিশোর মানসিক সমস্যায় আছে কিনা সেটি খতিয়ে দেখা হবে।

সচেতন মহলের দাবী, সুইসাইড নোটে উল্লেখ করা কথিত সুবহার মৃত্যুর ঘটনাটি বেশ ভয়াবহ। যদি সেটি সত্যি হয়ে থাকে, তাহলে ওই ঘটনা তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার পাশাপাশি ওসাইমিমের আত্মহত্যা চেষ্টার আসল কারণ খুঁজে বের করা হোক।