ফেসবুক গ্রুপে ও সাহিত্য পরিষদের নামে এ্যওয়ার্ডের বন্যায় ভাসছে দেশ, বাংলা সাহিত্যে অশনি সংকেত

ফেসবুক গ্রুপে ও সাহিত্য পরিষদের নামে এ্যওয়ার্ডের বন্যায় ভাসছে দেশ, বাংলা সাহিত্যে অশনি সংকেত
ছবিঃ সংগৃহীত

কি দূর্ভাগ্য বাংলাদেশের সাহিত্যের, ফেসবুকে মেয়ে আইডি হলেই সাহিত্যের পদক রাখার জন্য তাদের স্বামীদের আলমারি বা শোকেস বানাতে হচ্ছে।ফেসবুকে ঢুকলেই দেখবেন জাতীয় আর আন্তর্জাতিক সাহিত্য গ্রুপের ছড়া ছড়ি। মেয়ে আইডি হলেই যেন কবি নামের মম্বোধনের বন্যা। এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে কিছু লম্পট গোছের লোক তাদের নিজ নিজ স্বার্থকে চরিতার্থ করছে।লম্পটতা থেকে শুরু করে সাহিত্য এ্যওয়ার্ড দেয়ার নামে হাতিয়ে নিচ্ছে বছর বছর বিপূল অংকের টাকা।কখনো ভার্চুয়াল কখনো হার্ড তৈরী এসব এ্যওয়ার্ডের ছড়াছড়িতে দেশের বড় যে কোন প্রতিষ্ঠানের সব ধরনের স্মারক, ও এ্যাওয়ার্ড মান হারানো সহ ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। এ যেন রীতিমত এক ছেলে খেলায় পরিনত হয়েছে। এসব স্বার্থান্বেষি মহলের কারনে বাংলাদেশের সাহিত্য ব্যপক ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে।

অনেকের সাহিত্য সম্পর্কে ন্যুনতম কোন ধারনা নেই এমনকি বিভিন্ন স্বনামধন্য কবিদের কবিতা হুবহু কপি করে এসব নোংরা খেলায় মেতেচে। এদের একটি শক্তিশালি সিন্ডিকেট চক্র মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে।এদের অনেক দেশ বিদেশেও সহযোগী রয়েছে।সাহিত্যের সম্পর্কে কোন ধারনা নেই এমন এক বা একাধিক জন মিলে রাতারাতি তৈরী করে ফেলছে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক নাম দিয়ে সাহিত্য পরিষদ বা গ্রুপ। এসব গ্রুপের নামে চলছে সাহিত্যিক নামে অসাহিত্যিক ও কুসাহিত্যিকদের পদক ও গুনিজন সংবর্ধনা দেয়ার নামে অর্থ আদায়। সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষের কাছথেকে এভাবে বছরের পর বছর এ্যওয়ার্ড বা পদক দেয়ার নাম করে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে।এসব এ্যওয়ার্ড দেয়ার কাজে সমাজের অনেক প্রভাবশালী ব্যক্তিদের প্রধান বা বিশেষ অতিথি বানিয়ে আমন্ত্রন করে আনছে, তারাও বিষয়টি জানছেনা এটা আসলে বিষয়টা কি। এদেরকে দ্রুত আইনের আওতায় আনা জরুরী।সাহিত্য গ্রুপের নামে এরা নারীদের কাছাকাছি গিয়ে নানান উদ্দেশ্য হাসিল করছে বলেও ভুক্তেভোগীরা জানিয়েছে।

সমাজের অনেক বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গও এর গুরুত্বহীনতা অনুধাবন না করেই এসব স্বার্থান্বেসী মহলের খপ্পরে পড়ে প্রধান অতিথি কিংবা বিশেষ অতিথির হিসেবে উপস্থিত থেকে তাদের এসব কাজে সহায়তা করে সম্মানহানিকর পরিস্থিতিতে পড়ছে সমাজের অনেক গণ্যামন্য ব্যক্তিবর্গ।

ফেসবুক জুড়ে এধরনের স্বার্থান্বেসী মহলের একটি শক্তিশালি নেটওয়ার্ক গড়ে উঠেছে খুব দ্রুত। যারা মিলে অনেক নামি সাহিত্যিকদের নামে বিভিন্ন বিভ্রান্তিকর পোষ্ট সহ অপমানকর লেখা ছড়াচ্ছে। আর এরা এ সকল কাজের সহযোগী হিসেবে সুন্দরী ছবি পোষ্ট করা নারীদের ফাঁদ হিসেবে কাজে লাগাচ্ছে।আবার এসব গ্রুপের এডমিন মডারেটর নামে চলছে নানা রকম ফাজলামি।এসব অসাহিত্যিক সহ সমাজের কিছু লম্পটের কারনে দেশের সাহিত্যের আকার ও প্রকার যেন পাল্টে যেতে বসেছে।

সময় মত পদক্ষেপ না নিলে সময় দ্রুত ফুরিয়ে যাবে, তাই দেশের সত্যিকারের সাহিত্যিকদের জোর দাবি এসব কুচক্রীদের এখনি প্রতিহত করতে হবে।  

ম.ম.রবি ডাকুয়া

বাগেরহাট