বাউফলে ইভিএমে ভোট নিয়ে আ.লীগ নেতার বিতর্কিত মন্তব্যের তদন্ত শুরু

বাউফলে ইভিএমে ভোট নিয়ে আ.লীগ নেতার বিতর্কিত মন্তব্যের তদন্ত শুরু
ছবি: সংগৃহীত

মো.ফোরকান, বাউফল (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি।। আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে তদন্ত প্রতিবেদন না পাওয়া এবং ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট নিয়ে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচনী প্রচারনায় আওয়ামী লীগ নেতার বিতর্কিত মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার নাজিরপুর তাঁতেরকাঠী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদের উপনির্বাচন স্থগিত হওয়ার বিষয়ে তদন্ত শুরু করা হয়েছে।

আগামীকাল বুধবার (৩ আগস্ট) সরজমিনে তদন্ত করতে আসবেন বরিশাল অঞ্চলের আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মো. আলাউদ্দিন।

 এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন রিটার্নিং ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. তারিকুল ইসলাম। তদন্তের এ বিষয়টি বাউফল প্রেসক্লাবসহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকদের চিঠি দিয়ে অবহিত করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ২৩ জুলাই আওয়ামী লীগের মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী ইব্রাহিম ফারুকের উপস্থিতিতে নির্বাচনী প্রচারনার একটি উঠান বৈঠকে জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য জোবায়দুল হক রাসেল বলেছিলেন ‘ভোট হবে ইভিএমে, কে কোথায় ভোট দেবে তা কিন্তু আমাদের কাছে চলে আসবে। অতএব ভয় পাওয়ার কোনো কারণ নাই, টেনশনেরও কিছু নাই। 

এমন বক্তব্যের ভিত্তিতে সামাজিক যোগাযোগে মাধ্যম ফেসবুকে েভাইরাল হয়। যা বিভিন্ন গণমাধ্যম ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় প্রকাশিত হয়।
আওয়ামী লীগ নেতার এমন বক্তব্য নিয়ে সকল মহলে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা হয়। বিব্রত বোধ করেন প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিরাও। আর সাধারণ ভোটারদের মধ্যে অবাধ, সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ ভোট গ্রহণ নিয়ে শঙ্কা দেখা দেয়।

যা নির্বাচন কমিশনের নজরে েআসার পর চেয়ারম্যান পদের ভোট স্থগিত করে গত ২৫ জুলাই সোমবার প্রজ্ঞাপন জারি করে ইসি।

এদিকে ভোট স্থগিত হলেও আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। গত শুক্র ও শনিবার অটোগাড়ীতে করে নৌকার পক্ষে মাইকিং করা হয়। এ বিষয়ও চশমা প্রতীকের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী এসএম মহসীন রিটার্নিং ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেছেন।

রিটার্নিং ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. তারিকুল ইসলাম বলেন, খবর পেয়ে মাইকিং বন্ধ করা হয়েছে। সব বিষয়ের তদন্ত করা হবে।