বাউফলে দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ আহত-২০

বাউফলে দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ আহত-২০
ছবি: সংগৃহীত

মো.ফোরকান, বাউফল (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি।।পটুয়াখালী বাউফলের নাজিরপুর তাঁতেরকাঠি ইউনিয়ন পরিষদের উপ-নির্বাচনকে সামনে রেখে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর কর্মী সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে এক চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ  উভয় পক্ষের কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছে ।

 এবং একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর করা হয়েছে। আজ শুক্রবার (৮জুলাই) বিকাল পৌনে ৫টার দিকে তাঁতেরকাঠি সরোয়ার খানের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটেছে। 

জানা গেছে, চশমা মার্কার চেয়ারম্যান প্রার্থী মহসিন উদ্দিন (৫৫) ঘটনার দিন ঢাকা থেকে বাড়ি আসেন এবং ওই দিন বিকালে তিনি বেশ কয়েকজন কর্মী সমর্থকসহ নুরাইপুর বাজারে কোরবানীর গরু কেনার জন্য রওনা দিয়ে  তাঁতেরকাঠি গ্রামের সরোয়ার খানের বাড়ির কাছে পৌঁছলে নৌকা মার্কার চেয়ারম্যান প্রার্থী ইব্রাহীম ফারুকের ছেলে সৌমিকের নেতৃত্বে শতাধিক মোটরসাইকেল  নিয়ে চেয়ারম্যান প্রার্থী মহসিন উদ্দিনের উপর হামলা করে । 

এসময় আত্মরক্ষার জন্য তিনি দৌঁড়ে  সরোয়ার খানের ঘরে আশ্রয় নিলে সেখানে গিয়ে তাকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে যখম করে। 

এসময় তার কর্মী শামীম (৪০), স্বপন (২৭), সোহাগ মৃধা (৩৫), সাইফুল (৩০) ও রাসেল মৃধা আহত হয় এবং  স্বপনের একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর করা হয়।

এ ব্যাপারে নৌকা মার্কার চেয়ারম্যান প্রার্থী ইব্রাহীম ফারুকের ছেলে সৌমিক হামলার সাথে তার জড়িত থাকার বিষয় অস্বীকার করে বলেন, নৌকা মার্কার সমর্থনে আয়োজিত একটি মিছিলে চশমা মার্কার চেয়ারম্যান প্রার্থী মহসিন ও তার কর্মী সমর্থকরা হামলা করে। 

এ এঘটনায়  নৌকা মার্কার কর্মী সোহেল (৩২), মামুন (৪০), সান (২২) ও করিম মৃধাকে (৭০) কুপিয়ে ও পিটিয়ে জখম করে।

 এ ঘটনায় উভয় পক্ষের কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছে। আহতদের সকলকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এর জের ধরে ওই দিন সন্ধ্যার দিকে  বাউফল হাসপাতাল ক্যাম্পাসে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থী ও কর্মী  সমর্থকদের মধ্যে চরম উত্তেজনা দেখা দিলে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।