বাউফলে ব্রীজ নয় যেন মরণ ফাঁদ 

বাউফলে ব্রীজ নয় যেন মরণ ফাঁদ 
ছবি: সংগৃহীত

মো. ফোরকান।।বাউফল (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি।।পটুয়াখালীর বাউফল উপজলার মূলভূখন্ড থেকে বিচ্ছিন্ন ও চারদিকে নদীবেষ্টিত চন্দ্রদ্বীপ ইউনিয়নের চরনিমদী-চরআলগী গ্রামের মধ্য দিয়ে বয়ে যাওয়া আলগী খালের ওপর লোহার এ্যাঙ্গেল দিয়ে নির্মিত ব্রীজটি দীর্ঘ সাত বছরেও সংস্কার না হওয়ায় ব্রীজটি এখন মরণফাঁদে পরিনত হয়েছে। 

ব্রীজের অধিকাংশ স্লাব ধসে যাওয়ায় চন্দ্রদ্বীপের প্রায় ১৮-২০ হাজার মানুষ চরম ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছেন। প্রতিনিয়ত ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন স্কুল ও মাদ্রাসাগামী শিক্ষার্থীসহ মহিলা, শিশু ও বয়বৃদ্ধরা।

সরজমিনে দেখা গেছে, লোহার এ্যাঙ্গেল দিয়ে নির্মিত ব্রীজটির অধিকাংশ স্লাব ধসে গেছে। দুইপাশের লোহার এ্যাঙ্গেলগুলো মরিচাপড়া ও আকাবাকা । ব্রীজটির স্লাব ভেঙে ও লোহার এ্যাঙ্গেল ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ায় চলাচলের জন্য স্থানীয়রা কলা গাছ, গাছের ডাল, বাঁশ ও কাঠের তক্তা দিয়ে কোনরকম ভাবে মোরামত করলেও সংস্কার অথবা পূন: নির্মাণের কোন ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। ফলে খালের দুইপাশের চররায়সাহেব, চরমিয়াজান, চরনিমদী, কিসমত, পাঁচখাজুরিয়া, চরকচুয়ার হাজার হাজার মানুষ ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে । 

সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. দুলাল হোসেন বলেন, ব্রীজটি ৭ বছর আগে নির্মাণ করা হলেও ব্রীজটির এখন করুণ অবস্থা। এ্যাঙ্গেল আকা-বাকা হয়ে হেলে পড়েছে। সিমেন্টের স্লাব ভেঙে যাচ্ছে। গাছের ডাল, কাঠ, বাঁশ দিয়ে মেরামত করা হলেও তা বেশি দিন স্থায়ী হচ্ছে না। প্রতিদিন মুলভূখন্ডের স্কুল ও মাদরাসার শিক্ষার্থীসহ হাসপাতাল, বাজার ও নিমদী লঞ্চঘাট পাড়ি দিতে হয় হাজারো চরবাসীর। বিকল্প কোন পথ না থাকায় এই ব্রীজটি পাড় হতে চরবাসীদের দুর্ভোগ পোহাতে হয়। তাই ব্রীজটি নির্মাণের জন্য উর্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।