বাউফলে হঠাৎ বড়েছে ডায়রিয়ার প্রকোপ

বাউফলে হঠাৎ বড়েছে ডায়রিয়ার প্রকোপ
ছবিঃ সংগৃহীত

মো.ফোরকান,বাউফল,পটুয়াখালী।। ০৪ এপ্রিল২১,রবিবার।।পটুয়াখালীর বাউফলে  হঠাৎ করেই বৃদ্ধি পেয়েছে ডায়রিয়ার প্রকোপ। আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা দিতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছে চিকিৎসক ও নার্সরা। হাসপাতালে রোগীদের চাপ থাকায় বহির্বিভাগের রোগীকে মেঝেতে ও অন্যান্য ওয়ার্ড থেকে চিকিৎসা নিতে হচ্ছে।  আবহাওয়ার পরিবর্তনজনিত কারণে গরমের প্রকাপ বেড়ে যাওয়ায় ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়েছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, গত ৩ দিনে মোট ৮৬ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন। প্রতিদিনিই এখানে গড়ে ২৫ থেকে ৩০ জন করে রোগী ভর্তি হচ্ছেন। এদের মধ্যে নারী, শিশু ও বৃদ্ধের সংখ্যাই বেশি। হাসপাতালে একটি মাত্র ডায়রিয়া ওয়ার্ড ১২ টি বেড রয়েছে। শয্যা সংখ্যা কম থাকায় রোগীদের মেঝেতে কিংবা নারী ও পুরুষ ওয়ার্ডে চিকিৎসা নিতে হচ্ছে ।

এদিকে বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স-এ গিয়ে দেখা গেছে, ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগীদের ভিড়। ডায়রিয়া ওয়ার্ডে চিকিৎসা নেয়া ইন্দ্রকুল গ্রামের আব্দুল্লাহ নামের দুই বছর বয়সী রোগীর এক স্বজন ফাতিমা বেগম জানান, শুক্রবার দিবাগত ভোর রাত  থেকে বাচ্চার ডায়রিয়া ও বমি দেখা দেয়। শনিবার সকালে দ্রুত হাসপাতাল নিয়ে এসেছি, তার চিকিৎসা চলছে। অন্য আরেক রোগীর স্বজন পিয়ারা বেগম বলেন, তার বড় বোন ৫৫ বছর বয়সী রাশিদা বেগম ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে শনিবার হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন, চিকিৎসা চলছে। তবে কিছু ঔষধ হাসপাতাল থেকে দেয়া হচ্ছে আর কিছু ঔষধ বাহির থেকে কিনে নিতে হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন তিনি। অপরদিকে রোগীদের চাপ বেড়ে গেলেও তাদের ঠিকমত চিকিৎসা সেবা দেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়ছেন কর্তব্যরত নার্সরা।
স্টাফ নার্স হালিমা বেগম বলেন, ডায়রিয়া রোগীদের চাপ বেশি থাকায় আমাদের চিকিৎসা সেবা দিতে গিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে। গত মার্চ মাসে ৩২১ জন ডায়রিয়া রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন। এপ্রিলের ১ তারিখ থেকে আজ রবিবার (৪ মার্চ) দুপুর পর্যন্ত মোট ৮১ জন রোগী ভর্তি হয়েছপন। আমরা রোগীদের যথাসাধ্য চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাছি। তিনি আরো বলেন, ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিন হাসপাতালে এসে রোগীরা ভর্তি হচ্ছেন, এভাবে চলতে থাকলে ২/৪ দিন পর ঔষধ সংকটে চিকিৎসা সেবা ব্যহত হতে পারে। তাই চিকিৎসরা যাতে ব্যহত না হয় সেজন্য ডায়রিয়া রোগীদের জন্য অতি প্রয়োজনীয় কলেরা স্যালাইন, স্যালাইন সেট, খাবার স্যালাইন, আইভি ক্যানুলা, সিপ্রোক্সিন-ইনজেকশন, ফিলমেট ইনজেকশন এ সব ঔষধগুলো জরুরী ভিত্তিতে  সরবারাহ করা দরকার।

বাউফল উপজলা স্বাস্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা প্রশান্ত কুমার সাহা বলেন, ডায়রিয়া রোগীদের চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে পর্যাপ্ত ওষুধ-স্যালাইন সরবরাহ রয়েছে। গরমের কারণে ডায়রিয়া বেড়েছে। অতিতের যেকোন বছরের তুলনায় এবার ডায়রিয়ায় আক্রান্তেÍর হার বেশী। এর হাত থেকে রক্ষা পেতে হলে সবাইকপ স্বাস্থ্য সম্মত খাবার গ্রহণ ও স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে হব।