বৃক্ষ চারদিক সতেজ-সজীব গতিময় রাখে: রুহেল

বৃক্ষ চারদিক সতেজ-সজীব গতিময় রাখে: রুহেল
ছবিঃ সংগৃহীত

মোহাম্মদ হাসান।। স্টাফ রিপোর্টার।। চট্রগ্রামের মীরসরাই উপজেলায় বঙ্গোপসাগরে জেগে ওঠা নতুন চরসহ ইছাখালী ইউনিয়নের উপকূলীয় এলাকায় বনায়ন প্রকল্পের আওতায় বসত বাড়িতে চারা রোপণ ও বিতরণ কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন আজ ১৫ সেপ্টেম্বর বুধবার বিকেলে স্থানীয় অলী খাঁ পাঠান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত হয়।

ইছাখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল মোস্তফার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ প্রকল্পের শুভ উদ্বোধন করেন মীরসরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মিনহাজুর রহমান, প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন দেশের খ্যাতনামা আইটি বিশেষজ্ঞ, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মাহবুব রহমান রুহেল।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মাহবুব রহমান রুহেল বলে, ইতিমধ্যে বঙ্গোপসাগরে জেগে ওঠা নতুন চর স্থায়ী করার উদ্যোগ নিয়েছে বর্তমান সরকার। এক্ষেত্রে বিশেষ বনায়নের মাধ্যমে চর জেগে ওঠার প্রক্রিয়াকে ত্বরান্বিত করা হবে। পাশাপাশি ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাস প্রতিরোধে সবুজ বেষ্টনী তৈরি, কার্বন মজুদ বাড়ানো এবং আবাসস্থল ও প্রজনন সুবিধা সম্প্রসারণের মাধ্যমে সামুদ্রিক উদ্ভিদ ও প্রাণিকুলের জীববৈচিত্র্য সমৃদ্ধ করা হবে। ফলে দেশে ভূমির আয়তন বাড়বে। 

তিনি আরও বলেন, জনসংখ্যার চাপে বসতি বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে জ্বালানির প্রয়োজন মেটাতে আয়তনে ক্ষুদ্র এ বাংলাদেশের বনাঞ্চল উজাড় হচ্ছে ক্রমেই, সংকোচিত হয়ে আসছে বনভূমির পরিমাণ। সরকারি বেসরকারি হিসেবে বাংলাদেশের মোট আয়তনের ১৬ বা ১০ শতাংশ মাত্র বন। অথচ প্রাকৃতিক ভারসাম্য ঠিক রাখতে একটা দেশে বনভূমির প্রয়োজন আয়তনের ২৫শতাংশ। এখন দেশে অভাব দেখা দিচ্ছে কাঠ, বাঁশ, ফল-মূল এবং ওষুধপত্র তৈরির প্রয়োজনীয় বনজ দ্রব্যাদির। এভাবে আর কয়েক বছর চলতে থাকলে দেশে বনভূমির পরিমাণ শূন্যের কোঠায় এসে দাঁড়াতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে যার পরিণাম হবে ভয়াবহ। মানুষসহ প্রাণিকুল বেঁচে থাকবে না, দেখা দিবে বিপর্যয়, বিধ্বস্ত হবে সভ্যতা, বিপন্ন হবে দেশ ও জাতির অস্তিত্ব।

মাহবুব রহমান রুহেল বলেন, বৃক্ষ মহান সৃষ্টিকর্তার অনিন্দ্য সুন্দর সৃষ্টি। সবুজ পাতায় ছেয়ে থাকা বৃক্ষ প্রাণে জাগায় শিহরণ। হিমেল বাতাসে হৃদয় জুড়িয়ে আসে। কাঠফাটা রৌদ্রে ঘেমে যাওয়া শরীরের শান্তি আনে। বৃক্ষ ধু-ধু বালুচরে মুসাফির-পথিকের বন্ধু। রাখালের প্রশান্তির ঠিকানা। মানুষের জীবনের সঙ্গে বৃক্ষের প্রভাব ওতপ্রোতভাবে জড়িত। প্রত্যেক প্রাণীর বেঁচে থাকার জন্য গাছ আবশ্যকীয়। গাছ আমাদের অক্সিজেন দেয়। সেই অক্সিজেন গ্রহণ করে আমরা বেঁচে থাকি। একটি গাছ বছরে প্রায় ১৩ কেজি কার্বন-ডাই অক্সাইড গ্রহণ করে। গাছ পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করে। চারদিক সতেজ-সজীব গতিময় রাখে।