বানারীপাড়ার জুম্বদ্বীপ তালতলা- মন্ডলবাড়ী সড়কটির করুন হাল হাটু কাদা মারিয়ে চলাচল জনসাধারণের

বানারীপাড়ার জুম্বদ্বীপ তালতলা- মন্ডলবাড়ী সড়কটির করুন হাল হাটু কাদা মারিয়ে চলাচল জনসাধারণের
ছবিঃ সংগৃহীত

নাহিদ সরদার।।  বানারীপাড়া প্রতিনিধি।। ২১ আগস্ট, শনিবার।। বানারীপাড়ার দক্ষিন জুম্বদ্বীপ গ্রামের তালতলা থেকে স্বরূপকাঠি উপজেলার আটঘর কুড়িয়ানা সীমান্তবর্তী Í সড়কটির বেহাল অবস্থা বিরাজ করছে। ডিজিটাল বাংলাদেশে যখন আধুনিক সভ্যতার কথা ভাবা হচ্ছে সেখানে আদি সভ্যতার বেড়া জালে আটকে আছে তাল তলা – কুড়িয়ানা সড়কটি। বানাীপাড়া উপজেলার কেন্দ্রে অবস্থিত জুম্বদ্বীপ গ্রামের ওই সড়কটি পার হতে হাটু কাঁদা ভেঙে চেলাচল করতে হচ্ছে দক্ষিন জুম্বদ্বীপ গ্রামের মানুষকে। মাত্র তিন কিলোমিটার ওই সড়টি স্বাধীনতার পর প্রতিমন্ত্রী, হুইপ আর সংসদ সদস্য বানারীপাড়ায় জনপ্রতিনিধির দায়ীত্ব পালন করেছেন তারা সকলেই নানা অজুহাতের মাধ্যমে রাস্তাটি নির্মান করা এড়িয়ে গেছেন। সর্ব শেষ বর্তমান সংসদ সদস্য শাহে আলম ১ হাজার ২০০ মিটার সড়ক নির্মানের জন্য সিদ্ধান্ত দিয়েছে।

সরেজমিনে জানাগেছে, বানারীপাড়ার কৃতিসন্তান দৈনিক সমকালের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক মরহুম গোলাম সারওয়ারের ও বরিশাল পৌরসভার সাবেক মেয়র বর্তমান বানারীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম সালেহ মন্জু মোল্লার জন্মভূমি জুম্বদ্বীপ গ্রামটির সিংভাগই সন্ধ্যা নদীর কড়াল গ্রাসে বিলীন হয়ে গেছে। অবশিষ্ট রয়েছে দক্ষিন জুম্বদ্বীপ গ্রামটির বেশ কিছু এলাকা । ওই গ্রামের মাঝখান দিয়ে তালতলা- মন্ডলবাড়ী সড়কটি স্বরূপকাঠি উপজেলার খায়েরকাঠি,কুড়িয়ানার সাথে মিলিত হয়েছে ফলে ওই সড়ক দিয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ যাতায়াত করে। রাস্তাটির সিংহভাগ কাঁচা থাকার কারনে এমন কর্দমাক্ত হয়েছে যেখান থেকে মানুষ কেন কোন পশুর পক্ষেও সাভাবিক ভাবে চলা চল করা সম্ভব নয়। কিন্তু নিরুপায় জনতাকে সে পথই পাড়ি দিতে হচ্ছে প্রতিনিয়ত। বাগিরথের স্ত্রী সবিতা রানীকে দেখা গেল ওই পথ পাড়ি দিচ্ছিল। সবিতা রানী বলেন, বহু মানুষ এ রাস্তা দিয়ে যাওয়ারসময় তার সারাদিনের পরিশ্রমের টাকায় কেনা চাল ডাল ওই সড়কেই বিসর্জন দিয়ে যায়। তার বাড়ীর সামরে পুলটি নিজের ঘরের কাঠ দিয়ে মেরামত করে চলাচলের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। এসময় ওই পথ থেকে আসা বিলাশ মিস্ত্রী বলেন, স্বাধীনতার পর সাবেক প্রতিমন্ত্রী মরহুম একে ফায়জুল হক, সাবেক হুইপ মরহুম সৈয়দ শহীদুল হক জামাল নানা ছুতোয় রাস্তাটি করেননি। সাবেক সংসদ সদস্য মনিরুল ইসলাম মনি, সংসদ সদস্য তালুকদার মো. ইউনুচ রাস্তাটি করে দিব বললেও কোন পদক্ষেপ তারা নেননি। ওই এলাকার সাবেক মেম্বার নুরুল হক কালু বলেন, এই জুম্বদ্বীপের সন্তান সমকালের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক প্রয়াত গোলাম সারওয়ারের কাছে এলাকাবাসী নানা সমস্যার কথা জানালে তিনি প্রথমেই এলাকায় বিদ্যুতের ব্যবস্থা করেন। রাস্তাটির কাজ করানোর আগেই তিনি ইন্তেকাল করেছেন। বর্তমান সংসদ সদস্য মো. শাহে আলমকে বিষয়টি জানানো হয়েছে। তিনি শিগ্রই রাস্তার কাজ করাবেন বলেছেন।
এ বিষয়ে বানারীপাড়া সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আব্দুল জলিল ঘরামী বলেন, রাস্তাটির করুন অবস্থার কথা বিভিন্ন সময়ে প্রতিমন্ত্রী, হুইপ,এমপিদের জানানো হলেও করব-করছি করে সবাই সময় পার করেছেন। সর্বশেষ বর্তমান সংসদ সদস্য মো. শাহে আলমকে জানালে তিনি সড়কটি দ্রুত মেরামতে নির্দেশ দিয়েছেন। ইতোমধ্যে ১ হাজার ২০০ মিটার সড়ক নির্মানের প্রকল্প দিয়েছেন। পরবর্তিতে বাকী অংশ করে দিবেন বলেছেন। আশাকরি পর্যায়ক্রমে সড়কটি নির্মান করা হবে।