ব্যবসায়ি হাসান আলী হত্যার বিচার ও অপরাধিদের শাস্তির দাবীতে উত্তাল গাইবান্ধার মানুষ

ব্যবসায়ি হাসান আলী হত্যার বিচার ও অপরাধিদের শাস্তির দাবীতে উত্তাল গাইবান্ধার মানুষ
ছবিঃ সংগৃহীত

আবু তাহের। স্টাফ রিপোর্টার।। ১২ এপ্রিল, সোমবার।। গাইবান্ধা জেলা আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর স¤পাদক দাদন ব্যবসায়ী মাসুদ রানা তার বাড়িতে সুদের কিস্তির টাকার জন্য পাদুকা ব্যবসায়ী হাসান আলীকে টানা এক মাস আটকে রেখে হত্যার  প্রতিবাদে গাইবান্ধায় ব্যবসায়ি মহল ও সর্বস্তরের মানুষের অংশ গ্রহনে বিশাল মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এছাড়াও বিশাল বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে গাইবান্ধা জেলা পুলিশ সুপারের অফিস (এসপি অফিস) ঘেরাও কর্মসূচী পালন করেন ব্যবসায়ীসহ সর্বস্তরের মানুষ। 

১২ এপ্রিল সোমবার সকাল ১১টায় জেলা শহরের সকল ওষুধের দোকানসহ মার্কেট-শপিংমল ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে ব্যবসায়ীরা শহরের ডিবি রোডে সমবেত হয়ে বিক্ষোভ কর্মসূচীতে অংশ নেন। গাইবান্ধা চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রিজের আয়োজিত আসাদুজ্জামান মার্কেটের সামনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে ২৪ ঘন্টার মধ্যে সদর থানার ওসিকে গ্রেফতার, ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠনসহ হত্যাকান্ডের সুষ্ঠু বিচার দাবি জানায় বক্তারা। এই কর্মসূচীতে জেলার রাজনৈতিক, সামাজিক-সাংস্কৃতিক, ক্রীড়া সংগঠন, সাংবাদিক ও বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ এবং নিহত হাসান আলীর স্ত্রী বিথি বেগম, ছোট ছেলে হেদায়েতুল ইসলাম শাফিন বাবার হত্যার বিচার চেয়ে ন্যাম প্লাট বুকে অংশ নেন।এদৃশ্য সকল মানুষের হৃদয় কারে তারা মানববন্ধন ও সমাবেশ শেষে বিক্ষুব্ধ লোকজন মিছিল নিয়ে এসপি অফিস ঘেরাও করেন। এসময় ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দের সাথে পুলিশ সুপার মুহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম মতবিনিময় করেন। এসময় তারা দাবী সমন্বলিত স্মারক লিপি প্রদান করে ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ ২৪ ঘন্টার মধ্যে উল্লেখিত দাবিসমূহ বাস্তবায়নের দাবি জানান। অন্যথায় হরতালসহ লাগাতার নানা কর্মসূচী পালন করবে বলে আল্টিমেটাম দেন। পুলিশ সুপার তাদের বক্তব্য শোনেন এবং তা তদন্ত পূর্বক বাস্তবায়নের আশ্বাস দেন। এসময় পুলিশ সুপার নিহত হাসান আলীর পুত্র হেদায়েতুল ইসলাম শাফিনের লেখাপড়ার দায়িত্ব নেয়ার ঘোষণা দেন। 
চেম্বার সভাপতি শহিদুল ইসলাম শান্তর সভাপতিত্বে বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন রাজনীতিক আমিনুল ইসলাম গোলাপ, বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহ শরিফুল ইসলাম বাবলু, বীর মুক্তিযোদ্ধা ময়নুল ইসলাম রাজা, মিহির ঘোষ, গোলাম মারুফ মনা, জিয়াউল হক জনি, মনজুর আলম মিঠু, কাজী আবু রাহেন শফিউল্যাহ খোকন, গোলাম রব্বানী, জেলা যুবলীগ সভাপতি সরদার মো. শাহীদ হাসান লোটন, গাইবান্ধা চেম্বারের সহ-সভাপতি ও জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাক আহমেদ রঞ্জু, ওষুধ ব্যবসায়ী সমিতির জেলা সভাপতি আব্দুর রশিদ সরকার, শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশনের জেলা সভাপতি রেজাউন্নবী রাজু, গাইবান্ধা নাট্য ও সাংস্কৃতিক সংস্থার সাধারণ সম্পাদক দেবাশিষ দাশ দিপু, জেলা ব্যবসায়ী সমন্বয় সমিতির সভাপতি ইকবাল আহমেদ, মাইক ব্যবসায়ী সমিতির জেলা সাধারণ সম্পাদক জুয়েল মিয়া, পাদুকা ব্যবসায়ী সমিতির জেলা সভাপতি আলিম মিয়া, জেলা দোকান শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক চঞ্চল সাহা, সাবেক ছাত্রনেতা আরিফুল ইসলাম চৌধুরী শাহীন প্রমুখ। 

বক্তারা, হত্যাকান্ডের সুষ্ঠু তদন্ত, দাদন ব্যবসায়ী আ’লীগ নেতা মাসুদ রানার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং ২৪ ঘন্টার মধ্যে সদর থানার ওসি মাহফুজুর রহমানকে গ্রেফতার, ঘটনার সাথে জড়িত অন্যান্য পুলিশ কর্মকর্তাদের শাস্তি এবং বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবি জানান। দাবি আদায় না হলে জেলায় সর্বাত্মক হরতালের হুশিয়ারী দেন বক্তারা। 

এদিকে হাসান আলী নিহতের ঘটনার মামলায় দুই পুলিশ সদস্যের গাফিলতির অভিযোগ এনে তিনজনকে আসামি করা হয়েছে। এ মামলায় গ্রেফতার আওয়ামী লীগ নেতাকে চারদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। 

উল্লেখ্য,সুদের টাকা না দেওয়া ৫ মার্চ হতে ব্যবসায়ি হাসান কে আটকিয়ে রেখে নির্যাতন হত্যার অভিযোগে গাইবান্ধা জেলা শহরের খানকা শরীফ সংলগ্ন নারায়নপুর এলাকার বাসিন্দা গাইবান্ধা জেলা আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর স¤পাদক কুখ্যাত দাদন ব্যবসায়ী মাসুদ রানার বাড়ী থেকে গত ১০ এপিল শনিবার সকালে হাসান আলী (৪৫) নামে এক ব্যবসায়ীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পাদুকা ব্যবসায়ী এবং আফজাল সুজ গাইবান্ধা শাখার সাবেক মালিক নিহত হাসান আলী শহরের থানাপাড়া এলাকার মৃত হজরত আলীর ছেলে।