বীরগঞ্জে খাঁচায় বন্দি ২০টি পাখি অবমুক্ত, জরিমানা আদায় 

বীরগঞ্জে খাঁচায় বন্দি ২০টি পাখি অবমুক্ত, জরিমানা আদায় 
ছবিঃ সংগৃহীত

দিনাজপুর প্রতিনিধি। ২০ মার্চ, শনিবার।। দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার পলাশবাড়ী ইউনিয়ন নাজু মেম্বারের ওয়ার্ডে অভিযান চালিয়ে খাঁচায় বন্দি অবস্থায় ৬টি টিয়া, ৮টি ঘুঘু, ১টি পাতি সরালি, ৪টি ডাহুক ও ১টি তোতা পাখি উদ্ধার করে উপজেলা পরিষদ চত্বরে এনে মুক্ত আকাশে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

এ সময় অধৈভাবে পাখি বিক্রির দায়ে পলাশবাড়ী ঝোলঝলি গ্রামের হেজাত আলীর ছেলে ফরিদুল ইসলাম (৩৮) নামে একজনকে ১০হাজার টাকা জরিমানা আদায়  করেছেন ও উদ্ধারকৃত খাঁচা, পাখি ধরা ফাঁদ পুড়িয়ে দেয় ভ্রাম্যমাণ আদালত। শনিবার (২০ মার্চ) দুপুর আড়াইটার দিকে উপজেলা পরিষদ কার্যালয়ের সামনে পাখিগুলো অবমুক্ত করেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. ডালিম সরকার, রাজশাহী বনবিভাগের বন্যপ্রাণী ও জীববৈচিত্র্য  সংরক্ষণ কর্মকর্তা মোঃ রাহাত হোসেন, বন্যপ্রাণী পরিদর্শক জাহাঙ্গীর কবির,চট্টগ্রাম ভেনম রিসার্চ সেন্টারের সর্পবিশেষজ্ঞ বোরহান বিশ্বাস রমন, বন মালী রহমান, সাংবাদিক রেজা মোঃ তৌফিক, বিকাশ ঘোষ, তোফাজ্জল হোসেন প্রমূখ। জানা যায়, বনবিভাগের কর্মকর্তাবৃন্দ বন্যপ্রানী ও জীববৈচিত্র্য বিষয়ক সচেতনতামূলক পথসভায় থাকা অবস্থায় ঠাকুরগাঁও সদরের সেচ্ছাসেবী ও ছাত্র কামরুল হাসান রাব্বি, আবু বক্কর আসিফের মাধ্যমে জানতে পেরে তাৎক্ষণিক ভাবে বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃআব্দুল কাদের কে অবগত করা হলে ও তারই নির্দেশে অভিযান পরিচালনা করে দুপুর ১টার দিকে পাখিগুলো উদ্ধার করেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও বীরগঞ্জ উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ ডালিম সরকার ।

একইসঙ্গে সরকারের আইন অমান্য করে বন্য পাখি সংরক্ষণ, ক্রয় এবং বিক্রয় করার অপরাধে বন্য প্রাণী সংরক্ষণ আইন ২০১২ এ ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয় এবং ভবিষ্যতে এ ধরনের কাজ করা থেকে বিরত থাকার বিষয়ে সতর্ক করা হয়।