বরিশালে আসামির স্ত্রীর বটির কোপে পুলিশের এএসআই আহত

বরিশালে আসামির স্ত্রীর বটির কোপে পুলিশের এএসআই আহত
ছবি: সংগৃহীত

বাকেরগঞ্জ থানার আহত এএসআই কৃষ্ণকান্ত মিত্রকে আজ ভোররাতে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভ‌র্তি করা হ‌য়ে‌ছে। 
বরিশালে বা‌কেরগ‌ঞ্জে আসামি গ্রেপ্তারে গিয়ে পুলিশের এএসআই হামলার শিকার হয়েছেন। আহত এএসআই কৃষ্ণকান্ত মিত্র জানিয়েছেন, আসামির স্ত্রী তাকে বটি দিয়ে কুপিয়ে আহত করেছেন।

এ ঘটনায় হত্যা চেষ্টার অভিযোগে আসামিসহ তার স্ত্রীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গতকাল সোমবার রাতে বা‌কেরগঞ্জ উপ‌জেলার ফ‌রিদপুর ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে। বাকেরগঞ্জ থানার আহত এএসআই কৃষ্ণকান্ত মিত্রকে আজ ভোররাতে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভ‌র্তি করা হ‌য়ে‌ছে।

আহত এএসআই কৃষ্ণ জানান, গতকাল সোমবার বিকেল ৩টার দিকে উপজেলার ফরিদপুর ইউনিয়নের ভাতশালা গ্রামে রনি হত্যা মামলার আসামি মনিরকে গ্রেপ্তারে অভিযান চালায় পুলিশ।

তিনি বলেন, '৫ জনের একটি দল মনিরের বাড়িতে পৌঁছানো মাত্র মনিরের স্ত্রী কুলসুম বেগম বটি এনে আমার মাথায় কোপ দিলে আমি মেঝেতে পড়ে যাই। পরে অন্যান্য সহযোগী পুলিশ কুলসুম বেগম ও মনিরকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়।'

রনি হত্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা তারেক হাসান জানান, গত ১৯ এপ্রিল রাত ১২টার দিকে ফরিদপুর ইউনিয়নের ইছাপুরা গ্রামে মামুন মেম্বার ওরফে হাতকাটা মামুন এবং রনি মোল্লার লোকজনের মধ্যে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ হয়। এ সময় মামুনের সহযোগীরা রনি মোল্লা ও তার দুই ভাইকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করে।

এই ঘটনায় প্রধান আসামি মামুনের বাড়িতেও অভিযান চালায় পুলিশ।

রনি হত্যা মামলার আইও তারেক হাসান জানান, পুলিশের ওপর হত্যাচেষ্টা, সরকারি কাজে বাধাসহ বিভিন্ন ধারায় কুলসুমের বিরুদ্ধে বাকেরগঞ্জ থানায় মামলা করেছে এস আই মিজান।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, বরিশাল জেলা পুলিশ সুদীপ্ত সরকার দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, 'গুরুতর অবস্থায় এ এস আই কৃষ্ণকে বাকেরগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানে তার অপারেশন হয়। পরে তাকে পুলিশ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার মাথায় তিনটি সেলাই দিতে হয়েছে। তবে ডাক্তার জানিয়েছে এখন তিনি মোটামুটি বিপদমুক্ত আছেন।'