বুড়িগঙ্গা ফিরিছে নতুন রূপে প্রাণ ফিরিছে বুড়িগঙ্গায়

বুড়িগঙ্গা ফিরিছে নতুন রূপে প্রাণ ফিরিছে বুড়িগঙ্গায়
ছবি: সংগৃহীত
মিলন হোসেন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়। দূষিত বুড়িগঙ্গা ফিরিছে নতুন রূপে। সোনালী অতীত মাখা বুড়িগঙ্গার যৌবনের উত্তাল এবং বর্ষার পানি বাড়ায় নদীর চিরচেনা সৌন্দর্যে মুখরিত আবারো মৃত বুড়িগঙ্গা। গৌরবের বুড়িগঙ্গা সোনালী অতীত ফিরে পেয়েছে নতুন আঙ্গিককে। এ সময়ে নদী তাঁর শান্ত সাবলীল ভঙ্গিতে বর্ষার মৌসুমে হারানো গৌরব ফিরে আনতে নির্বাক। 
নদীর চিরচেনা সৌন্দর্যে মুখরিত বুড়িগঙ্গা পাড়ের মাঝিরা। মনের সুখে মাঝেমধ্যে মাঝিরা গানের তালে যৌবনের রঙিন মুহুর্তগুলো মনে করে নদী পারাপার করেন শত-শত মানুষকে নিয়ে। বর্ষার পানির প্রখরতা যেন মনে করিয়ে দেয় বাংলার নদীমাতৃক  প্রকৃতিক সৌন্দর্যের আবাহন অতীত। 
বর্ষার এই মৌসুমে বৃষ্টির পানির সাথে চারদিকের  খানিকটা জোয়ার বেড়েছে বুড়িগঙ্গার পাড়ে।  বুড়িগঙ্গায় নিয়মিত পারাপার হয় দুই পাড়ের ব্যবসায়ী এবং স্থানীয় বাসিন্দারা। এ সমস্ত স্থানীয় মানুষের পারাপারের একমাত্র নৌযানটি হচ্ছে ছোটছোট নৌকা, ট্রলার, এবং স্টিমার।  
নদীতে কোনো রকমের দূষণের চাপ না থাকায় বর্ষার চিরচেনা রূপে নিজেকে মেলে ধরেছে বুড়িগঙ্গা। মানুষের আনাগোনা, লঞ্চের আওয়াজ, মাঝিদের হাকডাক, হকারদের দোকানের পশরা কিংবা কুলিদের ভিড়াভিড় সবকিছুর মাঝেও বুড়িগঙ্গা এখন আপন গতিতে চলছে । 
বুড়িগঙ্গা পাড়ে ঘুরতে আসা মানুষের সংখ্যা বলে দিচ্ছি বর্ষার পানি বাড়ায় বুড়িগঙ্গার সৌন্দর্য দেখতে দূরদূরান্ত থেকে ছুটে আসছে তারা। শিশুরা সাঁতার কেটে উপভোগ করছে শৈশবের আত্মতৃপ্তি যার পরশে প্রাণ জুড়িয়ে যায় প্রতিটি মুহূর্তে। 
সদরঘাটে ঘুরতে আসা রিক্সা চালক মোহাম্মদ কালাম বলেন, আগের মতো কামাই রোজগার নাই । বাড়িতে ঠিক মতো টাকা পাঠাতে হিমসিম খাচ্ছি তাই মনটা অনেক খারাপ। এজন্য একা একা বুড়িগঙ্গার পাড়ে বসে আছে কিন্তু এখন মনটা ভালো লাগছে নদীর পরিবেশটা দেখে। খুবই গান গাইতে ইচ্ছে করছে বুড়িগঙ্গা সৌন্দর্য দেখে। 
সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিকেল ঘনিয়ে সন্ধ্যা নেমে আসলে বুড়িগঙ্গার নিজস্ব রূপে ফিরে আসে। যান্ত্রিক কোলাহলে ঘেরা লঞ্চ, স্টিমার, ট্রলার, জাহাজসহ সকল নৌযান চলাচল বন্ধ হলে বুড়িগঙ্গা যেন ফিরে পায় তার আপন গতি। শেষ বিকেলের গোধুলি লগ্নে সাড়ি সাড়ি নৌকা আর মাঝিদের হাঁক ডাকেে বুড়িগঙ্গা ফিরে পায় তার হারানো গৌরব।   
বুড়িগঙ্গা পারের মাঝিরা বলেন, আমরা চাই বুড়িগঙ্গা নদী সবসময় এমনভাবে পরিষ্কার থাকুক তাহলে আমরাও প্রাণভরে নিঃশ্বাস নিতে পারি। এমন সৌন্দর্যে নৌকা চালানোর আনন্দটা উপভোগ করতে চাই আমরা সবসময়।