বিয়ের পিড়িতে র‍্যাবের গুলিতে পা হারানো ঝালকাঠির সেই লিমন

বিয়ের পিড়িতে র‍্যাবের গুলিতে পা হারানো ঝালকাঠির সেই লিমন
ছবিঃ সংগৃহীত

মানিক হাওলাদার  স্টাফ রিপোর্টার।। ০৩ সেপ্টেম্বর, শুক্রবার।। র‌্যাবের গুলিতে পা হারানো সেই লিমন সংসারজীবন শুরু করতে যাচ্ছেন। কনে যশোর জেলার অভয়নগর উপজেলার নওপাড়া এলাকার রাবেয়া বসরী। যশোরে কনের বাড়িতেই শুক্রবার হচ্ছে বিয়ের অনুষ্ঠান।

১০ বছর আগে র‌্যাবের গুলিতে পা হারিয়েছিলেন লিমন হোসেন। তখন বয়স ছিল ১৬। এইচএসসি পরীক্ষার প্রস্তুতি নেয়ার সময় লিমনের পা হারানোর ঘটনা দেশজুড়ে আলোচনার জন্ম দেয়। প্রশ্নের মুখে পড়ে র‍্যাবের অভিযান।
 
ঝালকাঠির সাতুরিয়া গ্রামের সেই কিশোর এখন সাভার গণবিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বিভাগের সহকারী প্রভাষক। বিয়ে করে সংসারজীবন শুরু করতে যাচ্ছেন। কনে যশোর জেলার অভয়নগর উপজেলার নওপাড়া এলাকার রাবেয়া বসরী। যশোরে কনের বাড়িতেই শুক্রবার হচ্ছে বিয়ের অনুষ্ঠান।

লিমন হোসেন বলেন, `র‌্যাব আমাকে যখন গুলি করেছে, তখনও আমি জানি না কেন তারা আমাকে মেরে ফেলতে চাইছিল। পরে শুনেছি তারা অন্য একজনকে ভেবে ভুলে আমার পায়ে গুলি করেছে। ‘ডাক্তাররা আমার একটি পা যেদিন কেটে ফেলেছে, সেদিন থেকেই আমি হাল ছাড়িনি। কখনো ভাবিনি আমি পঙ্গু।’

অদম্য শক্তির লিমন এরপর চালিয়ে গেছেন পড়াশোনা, গড়েছেন ক্যারিয়ার। তিনি বলেন, ‘সব সময় গরিব বাবা-মাকে সাহস দিয়েছি, মানুষের সহযোগিতায় পড়াশুনা করেছি। আজ আমি স্বাবলম্বী, আমার এই জীবনযুদ্ধের পেছনে সবচেয়ে বড় অবদান মানবাধিকার সংগঠন এবং মিডিয়া অঙ্গনের। আমি মানবাধিকারকর্মী এবং মিডিয়াকর্মীদের প্রতি চিরঋণী।’
 
লিমন জানালেন, পরিবারের ইচ্ছায় বাবা-মায়ের পছন্দের মেয়েকে বিয়ে করে এবার জীবনে আরেক অধ্যায় শুরু করছেন তিনি। গায়েহলুদের অনুষ্ঠান হয়ে গেছে বৃহস্পতিবার। হবু স্ত্রী রাবেয়ার সঙ্গে কথা হয়। তিনি বলেন, ‘সে (লিমন) নিজের সঙ্গে যুদ্ধ করে নিজের ক্যারিয়ার গড়ে তুলেছেন, দাম্পত্য জীবনেও তিনি দায়িত্বশীল হবেন এটা বুঝেই আমি এ বিয়েতে রাজি হয়েছি।’