মহেশখালী সোনাদিয়া চ্যানেলে অস্ত্র ও গােলাবারুদসহ দুই জলদস্যু আটক 

মহেশখালী সোনাদিয়া চ্যানেলে অস্ত্র ও গােলাবারুদসহ দুই জলদস্যু আটক 
ছবিঃ সংগৃহীত

শাহজাহান চৌধুরী শাহীন, কক্সবাজার, ৯ আগষ্ট।। কক্সবাজারের দ্বীপ উপজেলা মহেশখালীর সােনাদিয়া চ্যানেলের গভীর সমুদ্রে অভিযান চালিয়ে ৩ টি দেশীয় তৈরি অস্ত্র ও গােলাবারুদসহ দুই জলদস্যুকে আটক করেছে র‍্যাব-১৫।

গত রবিবার (৮ আগস্ট) রাত সাড়ে ১১টার দিকে মহেশখালী চ্যানেলের গভীর সমুদ্রে ফিশিং বোটে ডাকাতির প্রস্তুতি কালে তাদেরকে আটক করা হয়।
আটককৃত জলদস্যুরা হলেন- কক্সবাজারের কুতুবদিয়া উপজেলার চেইন্দারপাড়া এলাকার নাজের হােসেনের ছেলে মোহাম্মদ রাশেদ ও একই এলাকার আবু তৈয়বের ছেলে মােহাম্মদ মিজান।


র‍্যাব-১৫ সূত্রে জানা যায়, গত ৬ আগস্ট টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুরের পশ্চিমে গভীর সমুদ্রে জলদস্যুরা ৫০ জন জেলেসহ ১৫/২০ টি ফিশিং বােট, তাদের আহরণকৃত মাছ এবং জালসহ আটক রাখে। পরে জেলেদের পরিবারের কাছে ফোন করে মােটা অংকের মুক্তিপণ দাবি করে। জেলে পরিবারের সদস্যরা মুক্তিপণ দিতে ব্যর্থ হলে জলদস্যুরা তাদের মারধরসহ অমানবিক নির্যাতন ও হত্যা করে মরদেহ সাগরে ফেলে দেয়ার হুমকি দেয়।
এর সূত্রধরে রবিবার (৮ আগস্ট) রাতে অপহৃত জেলেদের উদ্ধার ও জলদস্যুদের আটক করার জন্য অভিযানে নামে র‍্যাব -১৫ চৌকস আভিযানিক দল। অভিযানের একপর্যায়ে জলদস্যুরা অপহৃত জেলেসহ মহেশখালীর সােনাদিয়া প্যারাবনে অবস্থানের খবর পায় র‍্যাব। এ খবরের ভিত্তিতে ওই স্থানে পৌছায় র‍্যাব -১৫ এর আভিযানিক দল। র‍্যাব-১৫ এর অভিযান সম্পর্কে জানতে পেরে ও ধাওয়া খেয়ে জলদস্যুরা তরিঘড়ি করে অপহ্নত জেলেদের ছেড়ে দেয়। পরে ২ জন জলদস্যুকে কক্সবাজার সােনাদিয়া চ্যানেলে আটক করা হয়। আটক জলদস্যুদের হেফাজতে থাকা ৩ টি দেশীয় একনলা বন্দুকসহ ৫ রাউন্ড তাজা কার্তুজ উদ্ধার করা হয়।

এসব তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করে কক্সবাজার র‍্যাব-১৫ এর সহকারী পরিচালক ( মিডিয়া অফিসার) আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ শেখ সাদী জানান, আটককৃত জলদস্যুদের পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন। পলাতক জলদস্যুদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা অব্যাহত আছে।