রাঙ্গুনিয়ায় শেখ রাসেল দিবস পালিত 

রাঙ্গুনিয়ায় শেখ রাসেল দিবস পালিত 
ছবিঃ সংগৃহীত
এম. মতিন, চট্টগ্রাম প্রতিনিধি।। ‘শেখ রাসেল দীপ্ত জয়োল্লাস, অদম্য আত্মবিশ্বাস’ এ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে চট্টগ্রামের উত্তর রাঙ্গুনিয়ায়  শেখ রাসেল দিবস পালিত হয়েছে। 
সোমবার (১৮ অক্টোবর) বিকাল ৩ টায় উত্তর রাঙ্গুনিয়া শেখ রাসেল স্মৃতি সংসদের উদ্যোগে উপজেলা দঃ রাজানগর বি এইড পাবলিক লাইব্রেরি প্রাঙ্গণে পায়রা উড়িয়ে শেখ রাসেলের ৫৮ তম জন্মদিন পালন ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। 
উত্তর রাঙ্গুনিয়া শেখ রাসেল স্মৃতি সংসদের সভাপতি মো: নাজিম উদ্দীনে সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারি  মো: ফারুক চৌধুরীর ও কাজী শাওয়ালের সঞ্চালনায় উক্ত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আ.লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক আলহাজ্ব জসিম উদ্দিন তালুকদার। 
প্রধান বক্তা ছিলেন, দ: রাজানগর ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আহমদ সৈয়দ তালুকদার। 
বিশেষ অতিথি হিসেবে  আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা আ. লীগের উপদেষ্টা মোঃ ইউনুছ মিয়া, মাস্টার খোরশেদ আলম, উত্তর রাঙ্গুনিয়া প্রবাসী বঙ্গবন্ধু পরিষদের প্রতিষ্ঠা মোঃ আবদুল গফুর, ইউনিয়ন আ.লীগের সা: সম্পাদক মো: জামাল উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক মো: জসিম উদ্দিন তালুকদার, এ্যাড: সাজ্জাদ হোসেন জুয়েল ও মাস্টার মুহাম্মদ মুছা প্রমুখ। 
সভায় বক্তারা বলেন, শেখ রাসেল ছোট বয়সেই মানবিক, নেতৃত্বসুলভ আচরণ, পরোপকারী গুনাবলির অধিকারী ছিলেন। বেঁচে থাকলে আজকের ৫৮ বছরের মানুুষটিও হতেন এক অনন্য গুণাবলির ব্যক্তিত্ব। দেশের শত্রুরা ১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্ট শুধু বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেনি, বিশ্ব ইতিহাসের সবচেয়ে বর্বর ও নির্মমভাবে হত্যাকান্ডে সপরিবারে শিশু রাসেলকেও হত্যা করেছে। তারা বঙ্গবন্ধুর রক্তের উত্তরাধিকার চিহ্নটুকুও নিশ্চিহ্ন করতে চেয়েছিল। তাদের ওই ঘৃণ্য অপচেষ্টা যে শতভাগ ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয়েছে-এটি আজ প্রমাণিত। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুবর রহমানের সাথে সাথে শেখ রাসেলও বেঁচে থাকবে অনির্বাণ ভালোবাসা হয়ে।
উক্ত অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কাজী মঈন উদ্দিন, মিজানুর রহমান, আবুল কাশেম, রফিকুল ইসলাম রফু,মুহাম্মদ আলী,দীপক শীল, আবদুল্লাহ আল মামুন, আনিছুর রহমান চৌধুরী ও গিয়াস উদ্দিন প্রমূখ।
পরে পাবলিক লাইব্রেরি প্রাঙ্গণে নির্মিত শেখ রাসেলের অস্থায়ী প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে বঙ্গবন্ধুসহ ১৫ আগস্টের হত্যাকাণ্ডে শহীদ সকলের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়।