রেমিট্যান্স পাঠাতে খরচ দিতে হবে না

রেমিট্যান্স পাঠাতে খরচ দিতে হবে না
ছবি: সংগৃহীত

এস এম আওলাদ হোসেন, সিনিয়র রিপোর্টার।। রেমিট্যান্স পাঠাতে আর চার্জ দিতে হবে না প্রবাসীদের। এমনকি ছুটির দিনেও তা প্রেরণ করতে পারবেন তারা। অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশ (এবিবি) এবং বাংলাদেশ ফরেন এক্সচেঞ্জ ডিলারস অ্যাসোসিয়েশনের (বাফেদা) এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ডলার সংকটে বৈধভাবে রেমিট্যান্স বাড়াতে এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। রবিবার (৬ই নভেম্বর) সোনালী ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে এবিবি ও বাফেদার বৈঠক হয়। পরে সোনালী ব্যাংকের এমডি ও বাফেদার চেয়ারম্যান আফজাল করিম এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, এদিন ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীদের সংগঠন এবিবি এবং বৈদেশিক মুদ্রা লেনদেনকারী ব্যাংকগুলোর সংগঠন বাফেদার বৈঠক হয়। এতে সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ব্যাংকগুলো ১০৭ টাকায় রেমিট্যান্স এবং ১০০ টাকায় রপ্তানি আয় সংগ্রহ করবে। 

আফজাল করিম বলেন, প্রবাসীদের রেমিট্যান্স পাঠানোর চার্জ বা কমিশন ফি মওকুফ করা হয়েছে। কোনো ধরনের খরচ ছাড়াই সোমবার (৭ই নভেম্বর) থেকে তা পাঠাতে পারবেন তারা। ছুটির দিনেও রেমিট্যান্স পাঠাতে পারবেন প্রবাসীরা। ছুটিকালীন এক্সচেঞ্জ হাউজ খোলা রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এর আগে গত ২৩ অক্টোবর প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্সের বিপরীতে ডলার কেনার সর্বোচ্চ দর ৫০ পয়সা কমানো হয়। নতুন রেট নির্ধারণ করা হয় ১০৭ টাকা। সেই সঙ্গে রপ্তানি বিল ৫০ পয়সা বাড়ানো হয়। বিনিময় হার ধার্য করা হয় ৯৯ টাকা ৫০ পয়সা। ডলার সংকটে বৈধ পথে রেমিট্যান্স বাড়াতে নানা উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোও তৎপরতা বাড়িয়েছে। তবে কোনো কিছুতেই কাজ হচ্ছে না। হুন্ডিতে নিয়মিত লেনদেন হওয়ায় প্রবাসী আয় কমছেই।

গত অক্টোবরে রেমিট্যান্স কমে ১৫৩ কোটি ডলারের নিচে নেমেছে। গত ৮ মাসের মধ্যে যা সর্বনিম্ন। ২০২২/২৩ অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে গড়ে ২ বিলিয়ন ডলারের বেশি রেমিট্যান্স আসে। তবে গত সেপ্টেম্বরে কমে তা দাঁড়ায় ১৫৪ কোটি ডলারে। সেই থেকে নিম্নমুখী ধারা অব্যাহত আছে।