লক্ষ্মীপুরের চন্দ্রগঞ্জে প্রবাসীর স্ত্রীকে গণধর্ষণ,গ্রেপ্তার ২

লক্ষ্মীপুরের চন্দ্রগঞ্জে প্রবাসীর স্ত্রীকে গণধর্ষণ,গ্রেপ্তার ২
ছবিঃ সংগৃহীত
এস এম আওলাদ হোসেন, সিনিয়র রিপোর্টার।। ০১ সেপ্টেম্বর, বুধবার।। লক্ষ্মীপুরের উত্তর চন্দ্রপুরে রাতভর প্রবাসীর স্ত্রীকে গণধর্ষণের ঘটনায় গ্রেপ্তারকৃত ২ আসামিকে বুধবার (০১ সেপ্টেম্বর) দুপুর আড়াইটার দিকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। এরআগে ভোররাতে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতরা হলো- মোরশেদ আলম সোহেল (৩২) ও মো. সোহেল (৩৫)। 
মঙ্গলবার গণধর্ষণের ঘটনায় ভিকটিম গৃহবধূ নিজে বাদী হয়ে ৪ জনের বিরুদ্ধে চন্দ্রগঞ্জ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন। পুলিশ ও মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, গত সোমবার (৩০ আগষ্ট) দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে চন্দ্রগঞ্জ থানাধীন হাজিরপাড়া ইউপির উত্তর চন্দ্রপুর গ্রামে মালেয়েশিয়া প্রবাসীর স্ত্রীকে তার বসতঘরে ঢুকে জোরপূর্বক ৪ জনে মিলে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এরপর রাত সাড়ে ৩টার দিকে ওই গৃহবধূকে মারধর করে তার গলার চেইন, কানের দুল ও ২টি আংটি নিয়ে যায় ধর্ষকরা। এসময় গৃহবধূ বসতঘরে একাই ছিলেন। তার ৮বছরের একটি কন্যা শিশু তখন তার নানার বাড়িতে ছিল। পরদিন মঙ্গলবার গৃহবধূ নিজে বাদী হয়ে ঘটনার সাথে জড়িত ৪জনকে আসামি করে চন্দ্রগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন। আসামিরা হলো- স্থানীয় উত্তর চন্দ্রপুর গ্রামের মৃত আবিদ মিয়ার পুত্র মো. বাচ্চু (৩৮), হরিহর চক্র গ্রামের মৃত আবিদ মিয়ার পুত্র মো. সোহেল (৩২), উত্তর চন্দ্রপুর গ্রামের মৃত নুরনবীর পুত্র মো. সোহেল ও হরিহর চক্র গ্রামের নুরুল ইসলাম প্রকাশ হাডু ড্রাইভারের পুত্র সোহেল আহাম্মদ (৩৫)। 
চন্দ্রগঞ্জ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. বেলায়েত হোসেন জানিয়েছেন, উত্তর চন্দ্রপুর গ্রামে গৃহবধূ গণধর্ষণের ঘটনায় ৪ আসামির মধ্যে ২ আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অপর দুই আসামিকেও গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশ বিভিন্নস্থানে অভিযান চালাচ্ছে। চন্দ্রগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) একে ফজলুল হক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ন্যাক্কারজনক এই ঘটনায় জড়িতদের ২ জনকে গ্রেপ্তার ও অপর দুই আসামিকে গ্রেপ্তারের প্রচেষ্টা অব্যাহত আছে। অপরাধীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে বিচারে সোপর্দ করা হবে।