লক্ষ্মীপুরে মৎস্য কর্মকর্তা পরিচয়ে চাঁদাবাজি,সাবেক ছাত্রলীগ নেতাসহ আটক-৫

লক্ষ্মীপুরে মৎস্য কর্মকর্তা পরিচয়ে চাঁদাবাজি,সাবেক ছাত্রলীগ নেতাসহ আটক-৫
ছবিঃ সংগৃহীত
এস এম আওলাদ হোসেন, সিনিয়র রিপোর্টার।।লক্ষ্মীপুরে মৎস্য কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে ইলিশ বোঝাই গাড়ি থেকে মাছ লুট ও চাঁদাবাজি কালে জেলা ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত সাবেক এক নেতাসহ ৫ জনকে আটক করেন লক্ষ্মীপুর সদর মডেল থানা পুলিশ।
সোমবার (২আগষ্ট) রাত ১১টায় সদর উপজেলার উত্তর তেমুহনী এলাকায় এঘটনা ঘটে। আটককৃতরা হলো জেলা ছাত্রলীগের সাবেক উপ দপ্তর সম্পাদক শেবাব নেওয়াজ (২৩), জেলা মৎস্য অফিসের অফিস সহায়ক নকিবুল হাছান নকিব (২৫), সাংবাদিক নামধারী আনোয়ার হোসেন রতন (৩১), বাবুল চন্দ্র দাস (৪৫), ও মো: শাকিল সুফি (২৫)। মঙ্গলবার(০৩ আগষ্ট) বিকালে আটককৃতদের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করেছেন পুলিশ।
ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ী খোকন জানায় যায়, কমলনগর মতিরহাট ও রামগতি ঘাট থেকে ইলিশ বোঝাই ২টি পিকআপ ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়ে লক্ষ্মীপুরের পিয়ারাপুর এলাকায় আসলে ৭/৮জনের একটি সঙ্গবদ্ধ দল নিজেদেরকে মৎস্য কর্মকর্তা ও সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে ১টি পিকআপের গতিরোধ করেন। ড্রাইভার ও সহকারীকে জিম্মি করে লক্ষ্মীপুর পৌর শহরের বকুলতলা বেড়িবাঁধ এলাকায় নিয়ে যায় এবং বিভিন্ন হুমকি ধমকি দিয়ে তার থেকে মোটা অংকের চাঁদা দাবী করে। দর-কষাকষির পর নগদ ১০হাজার টাকা ও বিকাশের মাধ্যমে ৩০ হাজার টাকা চাঁদা আদায় করে নেয়। অপরদিকে ২য় গাড়িটি উত্তর তেমুহনী এলাকায় পৌঁছলে চাঁদার দাবিতে সেটিও আটক করে চাঁদাবাজারা।
এ অভিযানে নেতৃত্ব দানকারী পুলিশ কর্মকর্তা এসআই মহসিন জানান, মৎস্য কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে ইলিশ বোঝাই গাড়ি জিম্মি করে মারধর ও চাঁদা আদায়ের খবর পেয়ে পুলিশ ঘনাস্থল থেকে ৩জন ও অভিযান চালিয়ে আরো ২ চাঁদাবাজকে গ্রেফতার করেন। 
তাদের বিরুদ্ধে আজ মঙ্গলবার লক্ষ্মীপুর সদর থানায় দন্ডবিধি ১৪৩, ৩৪১,৩২৩, ১৭০, ৩৮৫, ৩৮৬, ৩৭৯ ও ৫০৬ ধারয় মামলা দায়ের করা হয়েছে। যাহার মামলা নং জিআর-৪০৯/২০২১। আটককৃতদের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।
এ বিষয়ে জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোহাম্মদ বিল্লাল হোসেন বলেন, ইলিশ বোঝাই গাড়ি আটকের বিষয়ে আমার জানা নেই, এ আটকের বিষয়ে আমার কোন নির্দেশনাও ছিলনা। নকিব জেলা মৎস্য অফিসের অফিস সহায়ক স্বীকার করে তিনি বলেন সে রাজস্ব খাতের নিয়োগকৃত জনবল নয়, একটি সিকিউরিটি কোম্পানীর মাধ্যমে তাকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।