লালাবাজারের বাসিয়া নদীতে  সেতু নির্মাণের দাবী বারবার উপেক্ষিত

লালাবাজারের বাসিয়া নদীতে  সেতু নির্মাণের দাবী বারবার উপেক্ষিত
ছবিঃ সংগৃহীত

সিলেট অফিস।। দক্ষিণ সুরমার লালাবাজার বাসিয়া নদীতে নির্মিত পুরাতন জরাজীর্ণ ফুটব্রীজের স্থলে যানবাহন চলাচলের উপযোগী ব্রীজ নির্মাণ করার জন্য অত্র জনপদের মানুষ দীর্ঘ দিন ধরে দাবী করে আসছেন।
এ ব্যাপারে সুদীর্ঘ কাল থেকে এলাকার মানুষ সভা সমাবেশ স্বারকলিপি সহ বিভিন্ন সময় সরকারের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে যানবাহন উপযোগী ব্রীজ নির্মানের জন্য কথা বলে আসছেন কিন্তু আজ অবধি ব্রীজ নির্মাণ না হওয়ায় এলাকার মানুষদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। 
জানা যায় দক্ষিণ সুরমা উপজেলার লালাবাজারের মধ্যদিয়ে এলজিইডির একটি পাকা সড়ক বাসিয়া নদী পার হয়ে দক্ষিণ সুরমা উপজেলার কামালবাজার ও বিশ্বনাথ উপজেলা সদরের সাথে এলজিইডির পৃথক দুটি পাকা সড়ক সংযুক্ত রয়েছে কিস্তু লালাবাজারের কাছে বাসিয়া নদীতে পুরাতন জরাজীর্ণ ফুটব্রীজ থাকার দরুন ও বাজার সংশ্লিষ্ট স্থান সরো থাকায় এ জনগুরুত্বপুর্ন সড়ক দুটিতে যানবাহন চলাচল করতে পারছেনা।
যানবাহন উপযোগি ব্রীজ না থাকায় জরাজীর্ণ ফুটব্রীজ দিয়ে রিকসা সিএনজি গাড়ী ছাড়া অন্যন্য যানবাহন এ ফুটব্রীজ দিয়ে যেতে পারেনা তাছাড়া রাস্তার বাজার অংশ সরো থাকায় যানবাহন সহ এ সড়কে যাতায়াতকারী মানুষদের দুর্ভোগের মধ্যে পড়তে হয়।
বিশেষ করে বাসিয়া নদীর পশ্চিমপাড়ের প্রায় ২০ টি গ্রাম ওপরাপর বেশ কয়েকটি গ্রামের মানুষ লালাবাজার কিংবা সিলেট মহানগরীতে জরুরী কাজে বিশেষ করে অসুস্থ রোগি স্কুল কলেজ ও মাদ্রাসায় পড়ুয়া শিক্ষার্থীরা সময় মতো গন্তব্যে স্থলে পৌছাতে পারেনা।
এ ব্যাপারে টেংরা গ্রামের বাসিন্দা বর্তমানে লন্ডন অবস্থানরত ডা: আতাউর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান ১৯৭৮ সালে তৎকালিন সরকার এ জনপদের মানুষের দাবীর প্রেক্ষিতে লালাবাজারে বাসিয়া নদীতে একটি ফুটব্রীজ নির্মান করে। বর্তমানে এ ফুটব্রীজটি যে কোন যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। অত্যন্ত ঝুঁকি নিয়ে ছোট ছোট যানবাহন পারাপার হচ্ছে।
এ ছাড়া এ জনগুরুত্বপুর্ণ সড়কের লালাবাজারের মধ্যখানের অংশ সরো থাকায় সুষ্টভাবে যানবাহন চলাচল ও সর্বসাধারনের চলাচলের প্রতিবন্ধকতা তৈরী হয় অনেক আবার বৈরি আচরনের শিকার হন।
তিনি আরো বলেন সরকার যেহেতু যোগাযোগ ব্যাবস্থার উন্নয়নে যুগান্তকারী ভুমিকা রাখছে বিধায় এ জনপদের মানুষের দাবী লালাবাজারে বাসিয়া নদীর পুনাতন জরাজীর্ণ ফুটব্রীজ ভেংগে দিয়ে সেখানে যানবাহন উপযোগী ব্রীজ নির্মাণে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এগিয়ে আসবে এটাই জনপদের মানুষের প্রত্যাশা।