সেই পিআইও নুরুন্নবীর বিরুদ্ধে ফের বিভাগীয় মামলা; ২ বছরের জন্য বেতন বৃদ্ধি স্থগিত

সেই পিআইও নুরুন্নবীর বিরুদ্ধে ফের বিভাগীয় মামলা; ২ বছরের জন্য বেতন বৃদ্ধি স্থগিত
ছবিঃ সংগৃহীত

আবু তাহের, স্টাফ রিপোর্টার।।ঘুষ-দুর্নীতি ও নানা অপকর্মে আলোচিত গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার সাবেক প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) নুরুন্নবী সরকারের বিরুদ্ধে আবারও বিভাগীয় মামলা হয়েছে। কর্তৃপক্ষের আদেশ অমান‌্য ও অসদাচরণের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় লঘুদণ্ড হিসেবে নুরুন্নবী সরকারের দুইটি বার্ষিক বর্ধিত বেতন দুই বছরের জন‌্য স্থগিত করা হয়। নুরুন্নবী সরকারকে গত ২৯ এপ্রিল রাঙ্গামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলা থেকে বান্দরবান সদর উপজেলা (পিআইও) হিসেবে বদলি করা হয়। কিন্তু গত ৩১ মে পর্যন্ত তিনি নতুন কর্মস্থলে যোগদান করেননি। পরবর্তীতে প্রধান কার্যালয়ে সংযুক্তের আদেশও উপেক্ষা করায় দুর্যোগ ব‌্যবস্থাপনা অধিদপ্তর থেকে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। 

সোমবার (১৮ অক্টোবর) বিকেলে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতরের  উপ-সচিব ও পরিচালক (প্রশাসন-১) ড. মো. হাবিব উল্লাহ বাহার স্বাক্ষরিত অফিস আদেশে এসব তথ‌্য জানা গেছে। 

গত ১০ অক্টোবরের ওই অফিস আদেশে বলা হয়, প্রশাসনিক কারণে ৬ মে তাৎক্ষণিক অবমুক্তির আদেশে বঘাইছড়ি থেকে নুরুন্নবী সরকারকে বদলি করা হয় বান্দরবান সদর উপজেলায়। পরে লিখিত জবাবে কোনভাবেই বদলীকৃত কর্মস্থলে যোগদান করা সম্ভব নয় বলে জানান তিনি। গত ৩১ মে পর্যন্ত যোগদান না করায় কর্তৃপক্ষের আদেশ অমান‌্য ও অসদাচরণের দায়ে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা (১১/২০২১)  রুজু করা হয়। অভিযোগের বিবরণীসহ গত ৬ জুন তার বিরুদ্ধে অভিযোগনামা প্রেরণ করা হলে তিনি ৩০ জুন জবাব দাখিল করেন। অভিযোগের বিষয়ে আরও তথ‌্য অনুসন্ধানে অধিদপ্তরের পরিচালক (কাবিখা) অঞ্জন চন্দ্র পালকে তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়। 

তদন্ত কর্মকর্তা সরেজমিন তদন্ত করে গত ২১ সেপ্টেম্বর এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। তদন্ত প্রতিবেদনে কারণ দর্শানো নোটিশের তার জবাবের ভাষা গ্রহণযোগ‌্য নয় এবং কর্তৃপক্ষের আদেশ অমান‌্য করেছেন বলে উল্লেখ করা হয়। এ কারণে সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা-২০১৮ এর ৩(খ) ও একই বিধিমালার ৪(২) এর (খ) ধারামতে নুরুন্নবী সরকারের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা দায়ের করা হয়। একই সঙ্গে তাকে দোষী সাবস্ত করে লঘুদণ্ড হিসেবে দুইটি বার্ষিক বর্ধিত বেতন দুই বছরের জন‌্য স্থগিত করে তার বিরুদ্ধে রুজুকৃত বিভাগীয় মামলা নিস্পত্তি এবং সাময়িক বরখাস্তের আদেশ প্রত‌্যাহারের কথাও উল্লেখ করা হয়েছে আদেশে। 

এরআগেও সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় থাকাকালে বছরের ৩৬৫ দিন ভ্রমণ ভাতা উত্তোলন, সহকর্মীদের সঙ্গে খারাপ আচরণসহ নানা অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তে প্রমাণিত হওয়ায় নুরুন্নবীর বিরুদ্ধে (০৫/২০২০) বিভাগীয় মামলা করে অধিদপ্তর। দুর্নীতির দায়ে দোষী সাব্যস্ত করে গত ২৮ ফেব্রুয়ারী তাকে শাস্তিমূলক (লঘুদণ্ড) হিসেবে স্থায়ীভাবে বেতন গ্রেড নিম্নতর (ডিমোশন) পদাবনতি দেয় অধিদপ্তর। 

প্রসঙ্গত : ২০১৫ সাল থেকে টানা ৫ বছর  সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় কমিশন বাণিজ‌্যসহ দুর্নীতির রাজত্ব কায়েম করেন পিআইও নুরুন্নবী। তার বিরুদ্ধে ঘুষ-দুর্নীতি এবং চাঁদাবাজির ঘটনায় দুদকসহ পাঁচটি মামলা হয় সুন্দরগঞ্জ থানায়। তার দুর্নীতি কর্মকাণ্ড নিয়ে ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বর মাসে একাধিক অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রচার করে যমুনা টেলিভিশনসহ বিভিন্ন গণমাধ‌্যম। পরে স্থানীয় প্রশাসন ও অধিদপ্তরের গঠিত একাধিক তদন্ত কমিটি সরেজমিনে অভিযোগের সত‌্যতাও পায়। পরে ২৮ সেপ্টেম্বর তাকে চট্রগ্রামের সন্দ্বীপে বদলি করে অধিদপ্তর।  

কিন্তু সেই বদলি ঠেকাতে নুরুন্নবী উচ্চ আদালতের শরণাপন্ন হয়েও ব‌্যর্থ হন। দুর্নীতি ফাঁসে ওই বছরের ১৬ সেপ্টেম্বর যমুনা টিভিসহ স্থানীয় ও জাতীয় পর্যায়ের ১২ গণমাধ্যমকর্মীর বিরুদ্ধে মানহানির অভিযোগে রংপুর আমলি আদালতে (কোতোয়ালী) পৃথক দুটি মামলা করেন তিনি। আদালতের নির্দেশে মামলা তদন্ত করে ৬ জনের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দাখিল করেন রংপুর পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআইও) তদন্তকারী কর্মকর্তা। এরপর আদালত বিবাদী গণমাধ্যকর্মীদের সমন জারি করে ২০২২ সালের ১৯ জানুয়ারী আদালতে হাজিরের আদেশ দেয়।