সাঘাটা পারিবারিক ব্র্যাক ডেলিভারি সেন্টারে প্রসূতির মৃত্যু 

সাঘাটা পারিবারিক ব্র্যাক ডেলিভারি সেন্টারে প্রসূতির মৃত্যু 
ছবি: সংগৃহীত

আবু তাহের, স্টাফ রিপোর্টার।।গাইবান্ধা জেলার সাঘাটা উপজেলার কচুুয়া ইউনিয়নের গাছাবাড়ী গ্রামের সাবেক মহিলা ইউপি সদস্যের পারিবারিক ভাবে গড়ে তোলা ব্র্যাক ডেলিভারি সেন্টারে সিজারিয়ানের মাধ্যমে জমজ পুত্র শিশু প্রসবের সময় মুন্নি খাতুন (৩০) নামের এক মায়ের মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে । এঘটনায় জমজ শিশু একজন অসুস্থ হলে তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত ডেলিভারি সেন্টার বন্ধ রেখে অভিযুক্ত আজমিন সুলতানা রিনা পলাতক রয়েছেন । 

স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, বুধবার সন্ধ্যায় সাঘাটা উপজেলার গাছাবাড়ী গ্রামের বক্তার হোসেন মেয়ে মুন্নি বেগমনের প্রসব বেদনা উঠে । পরে গাছাবাড়ী গ্রামের মানিকগঞ্জ বাজারের ব্র্যাক সেবিকার পরিচয় দানকারী কচুয়া ইউপির সাবেক মহিলা সদস্য আজমিন সুলতানা রিনার সাথে যোগাযোগ করলে তিনি রোগীকে নিজের বাড়িতে অবস্থিত ডেলিভারি সেন্টারে প্রসবের চেষ্টা করেন। পরে নরমল ডেলিভারিতে প্রসবের চেষ্টায় ব্যার্থ হলে জরায়ুতে সিজারের মাধ্যমে জমজ শিশুটি দুটি ডেলিভারি করলেও প্রচুর রক্ত খননেন কারনে মা মুন্নি আক্তার অসুস্থ হয়ে পরলে পরে তাকে হাসপাতালে নেয়ার পথে সে মারা যায়। এঘটনায় জমজ শিশু একজন অসুস্থ হলে তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য প্রেরন করা হয় । স্থানীয় প্রবাভশালীরা হস্তক্ষেভের কারনে রোগীর পরিবার থেকে আইনগত ব্যবস্থা নিতে সাহস পচ্ছেনা ।

গাইবান্ধার সাঘাটা থানার বোনারপাড়া পাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ রাকিব হোসেন স্থানীয় সাংবাদিকদের বলেন, “ এই ঘটনায় কেই অভিযোগ করেনি। আমরা অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নিবো।

এ বিষয়ে সাঘাটা উপজেলা নির্বাহী অফিসার সরদার মোস্তফা শাহিন স্থানীয় সাংবাদিক কে বলেন, ঘটনাটি শুনেছি । এই বিষয়ে তদন্ত পুর্বব ব্যবস্থা নেয়া হবে ।

একটি সুত্র জানায়, মুন্সি আক্তার বেগতিক দেখে তৎক্ষনাৎ ওই প্রসূতির পরিবারসহ সবাইকে ম্যানেজ করেছে।  তবে অনেকেই বিষয়টি  জানার পরেও মোটা অংকে রফাদফা করেছে।