স্ত্রীকে হত্যা করে বাঁচতে হুজুরের কাছে তাবিজ আনতে গিয়ে ধরা লালচান

স্ত্রীকে হত্যা করে বাঁচতে হুজুরের কাছে তাবিজ আনতে গিয়ে ধরা লালচান
ছবি: সংগৃহীত

স্ত্রী হত্যার অভিযোগে বরিশাল জেলার বাবুগঞ্জ উপজেলার মাধবপাশা থেকে গ্রেফতার করা হয় লালচান মোল্লা (৪০) কে। গাজীপুরে স্ত্রীকে হত্যা করে সে পালিয়ে যায়। 

২৭ আগষ্ট লালচান মোল্লার স্ত্রী রিনা খাতুন (৩৭) এর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। মরদেহ ও আলামত দেখে পুলিশ ধারণা করে এটি একটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড। মৃতদেহ উদ্ধারের পূর্বেই লালচান গা ঢাকা দিয়ে মাধবপাশায় অবস্থান করে। লালচাঁন সিরাজগঞ্জ জেলার শাহাজাদপুর এলাকার মৃত হাসান মোল্লার ছেলে।

মাধবপাশায় আত্মগোপনে থাকা অবস্থায় বিপদ-আপদ থেকে রক্ষা পেতে লালচান স্থানীয় মসজিদের ইমামের কাছ থেকে তাবিজ নিতে গিয়ে সি আই ডি পুলিশের হাতে ধরা পড়ে। 

সিআইডির বরিশাল জেলা ও মেট্রো শাখার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবুল কালাম জানান, রিনাকে নিয়ে গাজীপুর নগরীর কোণাবাড়ীর বাইমাইল এলাকার একটি বাড়িতে ভাড়া থাকতেন লালচাঁন। শনিবার বিকেলে তালাবদ্ধ রুম থেকে রিনার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। স্ত্রীর মরদেহ উদ্ধার হওয়ার আগ থেকেই আত্মগোপনে চলে যান লালচাঁন। সিআইডির এলআইসি শাখা তথ্য-প্রযুক্তির মাধ্যমে তার অবস্থান নিশ্চিত হয়। পরে লালচাঁনকে গ্রেফতারের জন্য সিআইডির বরিশাল মেট্রো ও জেলা শাখাকে দায়িত্ব দেয়। দায়িত্ব পেয়ে পরিদর্শক নুরুল আলম তালুকদারের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে লালচাঁদকে গ্রেফতার করা হয়েছে। 

তদন্তে প্রকাশ, স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়ার একপর্যায়ে স্ত্রী রিনাকে সজোরে লাথি মেরে বাইরে চলে যান লালচাঁন। এর কিছুক্ষণ পরই তিনি ঘরে ফিরে দেখেন তার স্ত্রীর মুখ দিয়ে রক্ত বেরোচ্ছে ও মরে পড়ে আছে। তৎক্ষণাৎ রুম তালা মেরে সটকে পড়েন লালচাঁন।