সিত্রাং আপডেট : পায়রা ও মোংলায় ৭ নম্বর বিপদ সংকেত

সিত্রাং আপডেট : পায়রা ও মোংলায় ৭ নম্বর বিপদ সংকেত
ছবি: সংগৃহীত

 ডেস্ক রিপোর্ট।। মধ্যো বঙ্গপোসাগর তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থিত ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং  আরও কিছুটা উত্তর  দিকে অগ্রসর  হয়ে এখন উত্তর মধ্যো বঙ্গোপসাগর তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছিলো। 

এবং এটি আজ ২৪ শে অক্টোবর সকাল ৯ টা বেজে ২৫ মিনিটে মংলা সমুদ্র বন্দর থেকে ৪৯৯ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থান করছিলো। এবং চট্টগ্রাম বন্দর থেকে ৫৬০ কিলোমিটার দক্ষিণ পশ্চিমে অবস্থান করছিলো 
এবং এটি আরও কিছুটা জোরদার হয়ে উত্তর পূর্ব  দিকে অগ্রসর হতেপারে।

ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৫৫ কিলোমিটার এর ভেতরে বাতাসের একটানা গড় গতিবেগ ঘন্টায় ৭৫ কিলোমিটার, যা দমকা ও ঝড়ো হাওয়া আকারে ৯০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে।
সাগর ঔ স্থানে প্রচন্ড উত্তাল রয়েছে, সরকারি আবহাওয়া অধিদপ্তর দেশের মংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরকে ৭ নাম্বার বিপদ সংকেত ও চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার সমুদ্র বন্দরকে ৬ নাম্বার বিপদ সংকেত দেখাতে বলেছে। 

 ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং সোমবার  ২৪ শে অক্টোবর দিবাগত গভীর রাতের পর বাংলাদেশের সাতক্ষীরা  উপকূল হতে বরিশাল উপকূলের ভেতরে আঘাত করতেপারে।
ঘূর্ণিঝড় টি উপকূল অতিক্রম করার সময় এর বাতাসের গতিবেগ ঘন্টায় ৮০ থেকে ১০০ কিলোমিটার এর ভেতরে থাকতেপারে। 
ঘূর্ণিঝড় অতিক্রম কালে, সাতক্ষীরা, খুলনা, বাগেরহাট, পিরোজপুর, বরগুনা, ঝালকাঠি, ভোলা, পটুয়াখালী নোয়াখালী, ফেণী, চট্টগ্রাম উপকূলে ঘন্টায় ৮০ থেকে ১০০ কিলোমিটার বেগে দমকা থেকে ঝড়ো হাওড়া বয়ে যেতেপারে। 

ঘূর্ণিঝড় টি অতিক্রম কালে বরগুনা, পটুয়াখালী, ভোলা, ঝালকাঠি, নোয়াখালী, ফেণী, চট্টগ্রাম এদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চর সমূহে স্বাভাবিক জোয়ার থেকে ৩ থেকে ৫ ফুট উচ্চ জলোচ্ছ্বাস দ্বারা আক্রান্ত হতেপারে, যেহেতু সেইসময় অমাবস্যা থাকবে।

 ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং এর প্রভাবে ইতিমধ্যে দেশের উপকূলীয় এলাকায় বৃষ্টি শুরু হয়েগেছে, এবং সেইসঙ্গে দেশের অনেক এলাকায় বৃষ্টি শুরু হয়েছে।, সময়ের সাথে সাথে বৃষ্টি এবং বাতাস দুটোই বাড়তেপারে। এদিকে আজ সকাল ১০ টা থেকে পরবর্তী ৩০ ঘন্টার ভেতরে, সাতক্ষীরা, খুলনা, বাগেরহাট, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বরগুনা, নোয়াখালী  পটুয়াখালী, বরিশাল, ভোলা, লক্ষ্মীপুর, ফেণী, চট্টগ্রাম ও এর পার্শ্ববর্তী এলাকায় ভারি থেকে অতিভারি বর্ষণ হতেপারে, এবং সেইসঙ্গে, নড়াইল, গোপালগঞ্জ, মাদারীপুর, শরিয়তপুর, ফরিদপুর, মুন্সীগঞ্জ, ঢাকা, চাঁদপুর, কুমিল্লা, নরসিংদী, গাজীপুর, কিশোরগঞ্জ, হবিগঞ্জ, সিলেট, মৌলভীবাজার, সুনামগঞ্জ, খাগড়াছড়ি, বান্দরবান, কক্সবাজার, রাঙ্গামাটি, ময়মনসিংহ  ও এর পার্শ্ববর্তী এলাকায় ভারি বর্ষণ হতেপারে ও রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের অধিকাংশ এলাকা ব্যাতিত দেশের বাকি এলাকায় মাঝারি থেকে ভারি বর্ষণ হতেপারে। এছাড়াও ভারিবৃষ্টির জন্য  পার্বত্য চট্টগ্রাম  এলাকায় পাহাড়ধ্বস হতেপারে।

আবহাওয়া বার্তায় ঝুকিপূর্ণ এলাকায় থাকা সকলকে নিরাপদ আশ্রয় কেন্দ্রে অবস্থান করার জন্য বলা হয়েছে, এবং আগামী ২৬ শে অক্টোবর পর্যন্ত সকল প্রকার মাছধরা নৌকা ও ট্রলার নিরাপদ স্থানে থাকার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।