সাঁতারে বিশ্ব রেকর্ড গড়তে ২৮১ কি.মি নদীপথ পাড়ি দেবেন মুক্তিযোদ্ধা ক্ষীতিন্দ্র চন্দ্র বৈশ্য

সাঁতারে বিশ্ব রেকর্ড গড়তে ২৮১ কি.মি নদীপথ পাড়ি দেবেন মুক্তিযোদ্ধা ক্ষীতিন্দ্র চন্দ্র বৈশ্য
ছবিঃ সংগৃহীত

সিলেট প্রতিনিধি।। সাঁতারে বিশ্বরেকর্ড গড়তে নেমেছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ক্ষীতিন্দ্র চন্দ্র বৈশ্য। একুশে পদকপ্রাপ্ত এই সাতারু আজ সোমবার সকাল সাড়ে ৬টায় সিলেট নগরীর কিনব্রিজ সংলগ্ন চাঁদনিঘাট থেকে সুরমায় সাঁতার শুরু করেন। ২৮১ কিলোমিটার সাঁতরে কিশোরগঞ্জের ভৈরব ফেরিঘাটে পৌঁছাবেন তিনি।এইটুকু পথ বিরতিহীন সাঁতরে যেতে পারলে টানা সাতারের বিশ্বরেকর্ড হবে।

অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা ক্ষিতীন্দ্র চন্দ্র বৈশ্য ছাত্রজীবনে ১৯৭৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পুকুরে একটানা ৯৩ ঘন্টা ১১ মিনিট এবং ১৯৭৬ সালে ১০৮ ঘন্টা ৫ মিনিট অবিরাম সাঁতার কেটে জাতীয় রেকর্ড সৃষ্টি করেন। ২০১৮ সালে ১৮৫ কি.মি দূরপাল্লার সাঁতার কাটাও আরেকটি স্থানীয় রেকর্ড। 

তিনি ১৯৭০ সাল থেকেই দূরপাল্লার বা অবিরাম সাঁতারের সঙ্গে জড়িত। সেবার নিজের থানা নেত্রকোনার মদনে টানা ১৫ ঘন্টা সাঁতার কেটেছিলাম। তারপর একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে তিনি দেশকে স্বাধীন করতে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েন। ১৯৭৩ সালে সিলেটের এমসি কলেজের পুকুরে টানা ৮২ ঘন্টা সাঁতার কাটেন তিনি।

ক্ষীতিন্দ্রর সাতার শুরুর সময় উপস্থিত সিলেট জেলা নৌ পুলিশের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার হুমায়ুন কবির আহমদ জানান, জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, নৌ-পুলিশসহ সিভিল সার্জনের একাধিক টিম তার সঙ্গে আছে। পানিতে অবস্থানকালীন সময়ে তার যাতে শারীরিক বা স্বাস্থ্যগত কোনো সমস্যা না হয়, বা হলেও যাতে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া যায়, সে ব্যাপারে সবাই সর্বোচ্চ সতর্কতায় কাজ করবে।

ক্ষিতীন্দ্র ১৯৫২ সালের ২৩ মে নেত্রকোণার মদন উপজেলার জাহাঙ্গীরপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি সিলেটের এমসি কলেজ থেকে পদার্থবিদ্যায় স্নাতক এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে একই বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন।