সাবেক ছাত্রলীগ নেতাকে গুলি করে হত্যা, আহত ১২ জন

সাবেক ছাত্রলীগ নেতাকে গুলি করে হত্যা, আহত ১২ জন
ছবিঃ সংগৃহীত
এম. মতিন, চট্টগ্রাম প্রতিনিধি।।  ১৮ আগস্ট, বুধবার।। 
জমির বিরোধের রেশ ধরে দিনদুপুরে প্রতিপক্ষের লোকজন এলোপাতাড়ি গুলি করে হত্যা করেছে চট্টগ্রাম নগরীর ওমরগণি এমইএস বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক নাছির উদ্দিন নোবেলকে (৪২)। এ ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হয়েছেন আরও ১২ জন।
 (১৭ আগস্ট) মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ১টার দিকে চকরিয়া উপজেলার বিএমচর ইউনিয়নের মুবিনপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। 
নিহত নোবেল পূর্ব বড় ভেওলা ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের সিকদার পাড়া গ্রামের মৃত আব্দুল খালেক সিকদারের ছেলে। তিনি ছিলেন চট্টগ্রাম এমইএস কলেজের ছাত্র সংসদের সাবেক সমাজকল্যান বিষয়ক সম্পাদক। এছাড়া তিনি স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা ও আসন্ন পূর্ব বড় ভেওলা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী।
এ ঘটনায় আহতরা হলেন- পূর্ববড় ভেওলা ইউনিয়নের সিকদারপাড়ার বাসিন্দা মো. ফেরদৌসের ছেলে আজিজুল হক (৫০), আবু তাহেরের ছেলে মিজানুর রহমান (৩১), ওমর মিয়ার ছেলে সরওয়ার হোসেন (৪২), আকবর আহমদের ছেলে আবুল কালাম ইয়াসিন (২১), সিরাজ মিয়ার ছেলে নুরুল আমিন (৩৫), আবুল হোসেনের ছেলে মো. শফি (৩৮), গোলাম উল ইসলামের ছেলে নুরুল কাদের (৪৬), আজাহার আহমদের ছেলে জাফর আলম (৫০) ও মন্নু আলমের ছেলে জাহেদুল ইসলাম (২৪)। আহতরা চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।
হত্যাকাণ্ডে সরাসরি জড়িত থাকা হেলাল উদ্দিন ও নাসির উদ্দিন নামে দুই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মঙ্গলবার সকালে নাছির উদ্দিনের চাষা আকতার আহমদ নোবেলের জমিতে চাষ করতে গেলে এনামুল হক নামের এক ব্যক্তি চাষাকে মারধর করে জমি থেকে উঠিয়ে দেন। পরে খবর পেয়ে নাছির উদ্দিন দলবল নিয়ে ঘটনাস্থলে যান। কোনো কিছু বুঝে উঠার আগেই এনামুল হক, রুবেল ও হেলাল উদ্দিনের নেতৃত্বে একদল বন্দুকধারী অতর্কিত গুলি ছোড়ে। এ সময় ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান নাছির উদ্দিন নোবেল। আহত হন আরও ১২ জন। স্থানীয় লোকজন নোবেলসহ আহতদের উদ্ধার করে প্রথমে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে যান। তাদের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় সবাইকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।
এদিকে নাছির উদ্দীনের মায়ের আহাজারিতে হাসপাতাল প্রাঙ্গন ভারী হয়ে উঠছে। ছেলেকে হারিয়ে বারবার মূর্ছা যাচ্ছেন তিনি।
নাছির উদ্দীনের মা কান্নাজড়িত কন্ঠে তারা বলেন, 'শুধু জমির বিরোধে নোবেলকে হত্যা করা হয়নি। আগামী নির্বাচনী প্রচারণা নামায় একটি পক্ষ এ হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে।'
এবিষয়ে পূর্ববড় ভেওলা ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার আরিফ বলেন, জমির বিরোধকে কেন্দ্র করে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নাছির উদ্দীন নোবেল নিহত হওয়ার খবর পেয়ে হাসপাতালে ছুটে যাই। আমি ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানাই, এবং জড়িতদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্ত শাস্তির দাবী জানাই।'
সাহারবিল ইউপি চেয়ারম্যান ও মাতামুহুরী থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মহসিন বাবুল বলেন, 'নাছির উদ্দিন নোবেল অত্যন্ত জনপ্রিয় নেতা ছিলেন। এলাকার মানুষের কাছে মানবিক নেতা হিসেবে  পরিচিত ছিলেন। যারা হত্যা করেছে তারা সবাই চিহ্নিত। তাদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি দাবি করছি।'
বিষয়টি নিশ্চিত করে চকরিয়া থানার ইনচার্জ (ওসি) শাকের মোহাম্মদ যুবায়ের বলেন, 'নিহত নাছির উদ্দিনের সাথে জমিজমা নিয়ে একটি পক্ষের সাথে বিরোধ ছিল। আজকে দুপুরে জমি নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে প্রতিপক্ষের গুলিতে মারা যান তিনি।  খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।'
তিনি আরও বলেন, 'পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে এজাহার দিলে মামলা নেয়া হবে। এঘটনায় জড়িয় থাকার দায়ে নাদের হোসেনের পুত্র হেলাল উদ্দিন (৩৬) ও আলী হোসেনের পুত্র নাসির উদ্দিনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকীদের ধরতে পুলিশের কয়েকটি টিম কাজ করছে।'