সংবিধান দিবসে বাহাত্তরের সংবিধান পুনঃপ্রতিষ্ঠার দাবি

সংবিধান দিবসে বাহাত্তরের সংবিধান পুনঃপ্রতিষ্ঠার দাবি
ছবি: সংগৃহীত

মো.নজরুল ইসলাম।।মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি।।"জাতির পিতার স্বপ্ন বুনি, শোষণমুক্ত সমাজ গড়ি"  আজ জাতীয় সংবিধান দিবস উপলক্ষে একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি মানিকগঞ্জ জেলা শাখার আয়োজনে মানিকগঞ্জ প্রেস ক্লাব চত্বরে সকাল ১১.০০ ঘটিকা থেকে ১২.০০ ঘটিকা পর্যন্ত  জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর সোনার বাংলা, ৭২ সালের সংবিধান বাস্তবায়নের দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। 

প্রতিবাদী মানববন্ধনে সংগঠনের বিপ্লবী সভাপতি এ্যাডভোকেট দীপক কুমার ঘোষ এর সভাপতিত্বে ও সংগ্রামী সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা এ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান এর সঞ্চালনায় দাবিমুখী  প্রতিবাদী বক্তৃতা করেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদের জেলা সাধারণ সম্পাদক আসলাম খান বাবু। ৭২ এর সংবিধান পুনঃপ্রতিষ্ঠার দাবিতে বক্তৃতায় আরো অংশগ্রহণ করেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি সিপিবি মানিকগঞ্জ জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক কমরেড মুজিবুর রহমান মাস্টার, ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি ন্যাপ এর কেন্দ্রীয় নেতা কমরেড লুৎফর রহমান খান ইলিচ,  উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী মানিকগঞ্জ জেলা  শাখার সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান মামুন, সাবেক কমিশনার ও সমাজ সেবক ইকবাল হোসেন খান, হিন্দু বৌদ্ধ খৃষ্টান ঐক্য পরিষদের জেলা সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আশুতোষ রায়, জাতীয় যুব জোটের কেন্দ্রীয় নেতা মো.সোলাইমান খান, বাংলাদেশ প্রগতি লেখক সংঘ মানিকগঞ্জ জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক কমরেড নজরুল ইসলাম, সমাজকর্মী তাপস কর্মকার, কবি ও সাহিত্যিক ডাঃ ভজন কৃষ্ণ বনিক, খেলাঘর আসর এর সংগঠক প্রবীর কর্মকার, এ্যাডভোকেট সানোয়ার হোসেন প্রমুখ। 


বক্তারা বলেন বাংলাদেশের জাতিরাষ্ট্রের ৫ ০ বছর পর আমরা রাষ্ট্রীয়ভাবে  সংবিধান দিবস পালন করছি দ
জেনে আনন্দ লাগছে।  দুঃখের কথা হলো মহান মুক্তিযুদ্ধর প্রধান অর্জন ১৯৭২ সালের সংবিধান আজ ভূলন্ঠিত। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর সোনার বাংলার স্বপ্ন আজ মৃত্যুর পদযাত্রী। এর সাথে আরও বিকাশ হয়েছে ধর্মভিত্তিক রাজনীতি অর্থনীতির। যার ফলে সাম্প্রদায়িকতা,জঙ্গিবা মৌলবাদ ফুলে ফেঁপে উঠছে। বন্দুকের নল দিয়ে এগুলো মোকাবিলা করা সম্ভব নয়। সাম্প্রদায়িকতার এই বিষবৃক্ষ উপরে ফেলে বাহাত্তরের সংবিধান ফিরে যেতে হলে সাংস্কৃতিক জাগরণ ঘটাতে হবে, বহুত্ববাদী সাংস্কৃতিক চর্চা বৃদ্ধি করতে হবে বলে আমার মনে করি। সরকারের কাছে জোর দাবি আমাদের কথা আমলে নিয়ে ধর্মভিত্তিক রাজনীতি ও চর্চা নিষিদ্ধ করে মুক্তিযুদ্ধের অসাম্প্রদায়িক শোষণমুক্ত চেতনার বাহাত্তর সালের সংবিধান পুনঃপ্রতিষ্ঠা করতেই হবে।